• শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৭ ১৪৩১

  • || ১৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
বঙ্গবন্ধুর চার নীতি এবং বাংলাদেশের চার স্তম্ভ সুফিয়া কামালের সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের প্রেরণার উৎস শুক্রবার ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফর: আঞ্চলিক ভূ-রাজনীতি নিয়ে আলোচনা হতে পারে ফিলিস্তিনসহ দেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায়

বারবার পানি পিপাসা লাগা কোনো রোগের লক্ষণ নয় তো?

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ১৮ মে ২০২৪  

গরমে অতিরিক্ত ঘামের সঙ্গে শরীর থেকে পানি বেরিয়ে যায়। ফলে বারবার পানি পিপাসা লাগা স্বাভাবিক। আর এ সময় প্রচুর পরিমাণ পানি পান করাও জরুরি। না হলে শরীরে পানির ঘাটতি দেখা দিতে পারে।

তবে অনেকেরই একটু পরপর গলা শুকিয়ে যায় বা ঘন ঘন পানি পিপাসা পায়, গরমে সেটাই স্বাভাবিক। তবে অনেকের ক্ষেত্রে বারবার পানি পিপাসা লাগা কোনো রোগেরও লক্ষণ হতে পারে। কোন কোন রোগের লক্ষণ হিসেবে ঘন ঘন পানি পিপাসা লাগতে পারে?

কোন কোন রোগের কারণে ঘন ঘন পানি পিপাসা পায়?

>> ডায়াবেটিসের লক্ষণ হতে পারে। ডায়াবেটিস দুই ধরনের হয়। ডায়াবেটিস মেলিটাস ও ডায়াবেটিস ইনসিপিডাস। দুই ক্ষেত্রেই এই লক্ষণ দেখা দিতে পারে।

>> অ্যানিমিয়া হলেও বারবার পানি পিপাসা হয়।

>> অ্যানিমিয়া ছাড়াও ওয়াটার ইনটক্সিকেশন হতে পারে। তার থেকেও বারবার গলা শুকিয়ে আসে।

>> এছাড়া খুব বেশি লবণ দেওয়া খাবার খেলেও এমনটি হতে পারে।

>> অতিরিক্ত খাবার খেলে তা হজমের প্রয়োজনে বারবার পানি পিপাসা লাগতে পারে।

ডায়াবেটিস হলে আর কী কী লক্ষণ দেখা দিতে পারে?

>> ঘন ঘন পানি পিপাসা ছাড়াও বারবার প্রস্রাব পায়।

>> ওজন কমতে থাকে।

>> মূত্রের মধ্যে কিটোনের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়।

>> প্রচণ্ড ক্লান্ত লাগে।

>> শরীর দুর্বল লাগে। কাজ করা কষ্টকর হয়ে ওঠে।

>> চোখের দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে যায় মাঝে মাঝে।

>> বারবার মেজাজ খারাপ হতে পারে।

>> শরীরের কোথাও কেটে গেলে তা শুকাতে সময় লাগে ইত্যাদি।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে হলে জীবনযাপনে পরিবর্তন আনতে হবে। এজন্য প্রতিদিন শরীরচর্চা করতে হবে। এছাড়া খাবার একবারে অনেকটা না খেয়ে অল্প অল্প করে বারবার খেতে হবে। নিয়মিত রক্ত পরীক্ষা করে সুগার লেভেলে নজর রাখাও জরুরি।