• বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৯ ১৪৩১

  • || ১৭ মুহররম ১৪৪৬

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ২১ জুলাই স্পেন যাবেন প্রধানমন্ত্রী আমার বিশ্বাস শিক্ষার্থীরা আদালতে ন্যায়বিচারই পাবে: প্রধানমন্ত্রী কোটা সংস্কার আন্দোলনে প্রাণহানি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত করা হবে মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেখাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী পবিত্র আশুরা মুসলিম উম্মার জন্য তাৎপর্যময় ও শোকের দিন আশুরার মর্মবাণী ধারণ করে সমাজে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার আহ্বান মুসলিম সম্প্রদায়ের উচিত গাজায় গণহত্যার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়া নিজেদের রাজাকার বলতে তাদের লজ্জাও করে না : প্রধানমন্ত্রী দুঃখ লাগছে, রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও বলে তারা রাজাকার শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস আজ

সুস্থ থাকতে দিনে কতক্ষণ হাঁটা উচিত?

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ৩০ জুন ২০২৪  

সুস্থ থাকতে হাঁটার বিকল্প নেই। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞদের মতে, ‘কার্ডিও শরীরচর্চার মধ্যে সবচেয়ে কার্যকরী হলো হাঁটাহাঁটি’। শরীরচর্চার উদ্দেশ্যে কেউ কেউ মিনিট অনুযায়ী হাঁটেন, আবার কেউ হাঁটেন কিলোমিটার মেপে।

তবে একজন মানুষের সুস্থ থাকতে কতক্ষণ হাঁটা উচিত, তা কারও জানা আছে? বেশিরভাগ স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও চিকিৎসকের মতে, প্রাপ্ত বয়স্কদের উচিত দৈনিক কমপক্ষে ৩০ মিনিট মাঝারি ও তীব্রতার সঙ্গে হাঁটা।

আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের তথ্য অনুযায়ী, প্রতি সপ্তাহে কমপক্ষে ৩০০ মিনিট অর্থাৎ ৫ ঘণ্টা সক্রিয় থাকা উচিত। গবেষণায় দেখা গেছে, হাঁটাহাঁটি উচ্চ রক্তচাপ কমানো থেকে শুরু করে মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বাড়াতে সাহায্য করে। একই সঙ্গে হৃদযন্ত্রও ভালো থাকে। এছাড়া হাঁটার আরও অনেক উপকারিতা আছে।
হাঁটার যত উপকারিতা

ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে

যারা ওজন কমানোর রেসে দৌড়াচ্ছেন, এমনকি যারা ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে চাইছেন উভয়ের জন্যই হাঁটার উপকারিতা অনেক। কারণ ওজন কমাতে অন্য ব্যায়ামের পাশাপাশি হাঁটাহাঁটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। হাঁটলে প্রচুর পরিমাণে ক্যালোরি বার্ন হয়, এর সঙ্গে স্বাস্থ্যকর খাবার খেলে ওজন কমবে দ্রুত।
হৃদযন্ত্র ভালো রাখে

নিয়মিত হাঁটা হৃদস্পন্দন বাড়াতে রক্ত সঞ্চালন উন্নত করে, রক্তচাপ ও কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। ফলে হার্টের স্বাস্থ্য ভালো থাকে। তাই হার্টের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে নিয়মিত হাঁটার বিকল্প নেই।

পেশিশক্তি বাড়ে

হাঁটলে পায়ের পেশিশক্তিশালী হয়। এমনকি নমনীয়তা বাড়ে ও শরীরের শক্তিও বাড়ে।

মানসিক সুস্থতা

হাঁটলে এন্ডোরফিন হরমোনের নিঃসরণ বাড়ে। ফলে মানসিক চাপ, উদ্বেগ ও বিষণ্নতা কমে। অন্যদিকে ইতিবাচক চিন্তা ও জ্ঞান বাড়ে। গবেষণায় দেখা গেছে, মাত্র ১০ মিনিট হাঁটলে আত্মবিশ্বাস ও মনোবল বাড়ে।

গবেষণায় আরও দেখা গেছে, নিয়মিত হাঁটলে আপনার স্নায়ুতন্ত্রে এতটাই পরিবর্তন ঘটে যে, মস্তিষ্ক থেকে সব ধরনের নেতিবাচক চিন্তা দূর হয়, রাগ কমে, মেজাজ নিয়ন্ত্রণে থাকে।

কীভাবে হাঁটা উচিত?

হাঁটার সব ধরনের সুবিধা পেতে নিয়ম মেনে আপনাকে হাঁটতে হবে। স্বাস্থ্যবিদদের পরামর্শ অনুযায়ী, ধীরে ধীরে হাঁটা শুরু করা উচিত। তারপর যখন আপনার মনে হবে আরেকটু জোরে কদম ফেলতে হবে, তখনই গতি বাড়াতে হবে।

আপনি যদি জিমে গিয়ে ট্রেডমিলে হাঁটেন সেক্ষেত্রে জিম ইনস্ট্রাকটরের পরামর্শ মেনে তবেই গতি বাড়াবেন। যদি বাইরে হাঁটেন তাহলে হালকা থেকে গতি বাড়াতে পারেন। চাইলে জগিংও করতে পারেন।

শুধু হাঁটলেই কি সুস্থ থাকা যায়?

বিশেষজ্ঞদের মতে, হাঁটা একটি চমৎকার ব্যায়াম, যা সামগ্রিক স্বাস্থ্য ও সুস্থতার খেয়াল রাখে। এমনকি বিভিন্ন গবেষণায় প্রমাণিত যে, হাঁটা স্বাস্থ্যের জন্য কতটা উপকারী।

শুধু ওজন নিয়ন্ত্রণেই নয়, কার্ডিওভাস্কুলার স্বাস্থ্য ভালো রাখা থেকে শুরু করে পেশিশক্তি বাড়াতে, মেজাজ ভালো রাখতে ও দুশ্চিন্তা কমাতে দারুণভাবে কাজ করে হাঁটাহাঁটি। তাই অন্য ব্যায়াম করার আগে শরীর প্রস্তুত করতে নিয়মিত হাঁটাহাঁটির পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

যারা সদ্য শরীরচর্চা শুরু করেছেন, তাদের উচিত নিয়মিত হাঁটা। পরবর্তীসময়ে এর পাশাপাশি অন্য ব্যায়াম করলেও উপকৃত হবেন।