• শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩০ ১৪৩১

  • || ০৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা

মামুনুল হকসহ ২২ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

রাজধানীর দারুসসালাম থানার গাড়ী ভাংচুরের মামলায় হেফাজতে ইসলামের সাবেক যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হকসহ ২২ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়েছে।
রোববার ঢাকার পঞ্চম যুগ্ম মহানগর দায়রা জজ ও বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-১০ এর বিচারক মামুনুর রহমান ছিদ্দিকী এর আদালতে মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। প্রথমদিন সাক্ষ্য দেন মামলার বাদী প্রদীপ কুমার সাহা। এদিন সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ না হওয়ায় আদালত পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ১৭ অক্টোবর তারিখ দিন ধার্য করেছেন।

মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০১২ সালের ৯ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে ৬টার দিকে  বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দল সমর্থিত ৪০০-৫০০ জন নেতাকর্মী লাঠিসোটাসহ সজ্জিত হয়ে গাবতলী এলাকায় মিছিল বের করে। এরপর গাবতলীস্থ আল্লাহর দান হোটেলের সামনে পৌঁছে গাবতলী হতে ছেড়ে আসা যাত্রীবাহী একটি বাসের গতিরোধ করে গাড়ীর সামনের এবং পাশের গ্লাস ভাংচুর করে গাড়ীর আনুমানিক দেড় লাখ টাকার ক্ষতি করে এবং আটটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়।

এ ঘটনায় দারুসসালাম থানার এসআই প্রদীপ কুমার সাহা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে ১৯০৮ সালের পেনাল কোডের ১৪৩/৩৪১/১৪৭/১৪৮/১৪৯/১২৩ ধারা ও বিস্ফোরক দ্রব্যাদি আইনের ৩ ধারার অভিযোগ আনা হয়। পরে মামলাটি তদন্ত করে ২২ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা।

মামলার চার্জশিটভুক্ত অন্য আসামিরা হলেন- এস এ খালেক (২) সাইদুল (৩২), (৩) মোহাম্মদ আলী (৩৩), (৪) খলিলুল্লাহ (2) হিরু (৩৪), (৫) মাসুদ (২৮), (৬) বাবুল (৩১), (৭) সালেক (৩৫) এবং (৮) এইচ এম ইমরান (৩০), মিজানুর বাবু (৩০) পান্নু শেখ, মো. দবির উদ্দিন (২৪), আব্দুর রাজ্জাক (৪২), শেখ শাহিন শাহ (৪৩), মো. ইয়াসিন আরাফাত (২২), কনক কনা (৩০), মোস্তফা কামাল মিজান (৫৮), আব্দুল আজিজ (৪২), মো. আমজাদ হোসেন শিকদার (৬০), মো. তরিকুল ইসলাম (২৮), এসএম কাওসার পাপ্পু (৫০), কাজী আব্দুল হানিফ।