• বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩০ ১৪৩১

  • || ০৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার

কল্যাণের ওপর বেঁচে থাকা ও মৃত্যুবরণ করার আমল

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩  

‘কাফফারাত ও দারাজাত’ ইবাদাতের দুটি বিশেষ পরিভাষা। নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম দুটি ইবাদত সম্পর্কেই উম্মতে মুহাম্মাদিকে জানিয়েছেন। এই ইবাদত ও দোয়ায় সহজেই আল্লাহর নৈকট্য অর্জন করা সম্ভব। আবার কল্যাণের ওপর বেঁচে থাকা ও কল্যাণের ওপর মৃত্যুবরণ করা নসিব হবে। গুরুত্বপূর্ণ এ ইবাদত ও দোয়া সম্পর্কে হাদিসে পাকে এসেছে-

হজরত আবদুর রহমান ইবনু আয়িশ ইবনু আব্বাস ও মুয়াজ ইবনু জাবাল রাদিয়াল্লাহু আনহুমা বর্ণনা করেছেন, আল্লাহ তাআলা বলেছেন- হে মুহাম্মাদ! আপনি কি জানেন ‘মালা-উল আলা’ কী বিষয়ে তর্ক করছে?


নবিজী বললেন, ‘হ্যাঁ’, আমি জানি! ‘কাফফারাত’ নিয়ে বিতর্ক করছে। ‘কাফফারাত’ হলো-

১. মসজিদে নামাজের পর আরেক নামাজের ওয়াক্ত আসা পর্যন্ত অপেক্ষা বা জিকির-আজকার করার জন্য বসে থাকা।

২. জামাতে নামাজ আদায় করার জন্য পায়ে হেঁটে (মসজিদে) চলে যাওয়া।

৩. কঠিন সময়ে (অসুস্থাবস্থায় বা প্রচণ্ড শীতের সময়) অজুর স্থানে (অঙ্গসমূহে) ভালোভাবে পানি পৌঁছানো।

যারা এভাবে উল্লিখিত আমলগুলো করলো; তারা কল্যাণের উপর বেঁচে থাকবে, কল্যাণের ওপর মৃত্যুবরণ করবে। আর তার গুণাহসমূহ থেকে এমনভাবে পুতপবিত্র হয়ে যাবে, যেন আজই তার মা তাকে প্রসব করেছে।


আর আল্লাহ তাআলা বলেছেন, হে মুহাম্মাদ! নামাজ আদায় করার পর এ দোয়া পড়ে নেবেন-

اللَّهُمَّ إِنِّي أَسْأَلُكَ فِعْلَ الْخَيْرَاتِ وَتَرْكَ الْمُنْكَرَاتِ وَحُبَّ الْمَسَاكِينِ وَإِذَا أَرَدْتَ بِعِبَادِكَ فِتْنَةً فَاقْبِضْنِي إِلَيْكَ غَيْرَ مَفْتُونٍ

উচ্চারণ : ‘আল্লাহুম্মা ইন্নি আসআলুকা ফি’লাল খায়রাতি ওয়া তারকাল মুনকারাতি ওয়া হুববাল মাসাকিনি ওয়া ইজা আরাদতা বি-ইবাদিকা ফিতনাতান ফাক্ববিদ্বনি ইলাইকা গাইরা মাফতুন।’

অর্থ : ‘হে আল্লাহ! আমি তোমার কাছে ভালো কাজ করার তাওফিক চাই। খারাপ কাজ থেকে বিরত থাকার শক্তি চাই। গরিব-মিসমিনদের সঙ্গে বন্ধুত্ব স্থাপনের সুযোগ চাই। আর যখন তুমি বান্দাদের মধ্যে পথভ্রষ্টতার এবং ফেতনা-ফাসাদ সৃষ্টি করার ইচ্ছা করবে তখন আমাকে ফেতনামুক্ত রেখেই তোমার কাছে উঠিয়ে নেবে।’

নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরও বললেন, ‘দারাজাত’। ‘দারাজাত’ হলো-

১. সালামের প্রসার করা,

২. গরিবকে খাবার দেওয়া,

৩. রাতে মানুষ যখন ঘুমে থাকে তখন নামাজ আদায় করা।’ (তিরমিজি ৩২৩৩; মিশকাত ৭২৬)

হাদিসের দিকনির্দেশনা অনুযায়ী কাফফারাত ও দারাজাত খুবই গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত ও আমল। উল্লেখিত আমল-ইবাদতের পর আল্লাহ তাআলা উল্লেখিত দোয়াটি পড়তে বলেছেন।

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, হাদিসের নির্দেশনা অনুযায়ী ‘কাফফারাত ও দারাজাত’ নির্দেশিত আমল-ইবাদত করা এবং উল্লেখিত দোয়ার মাধ্যমে আল্লাহর কাছে সাহায্য প্রার্থনা করা।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে কাফফারাত ও দারাজাতের আমলের পাশাপাশি জীবনঘনিষ্ঠ দোয়াটি পড়ার মাধ্যমে কল্যাণের ওপর বেঁচে থাকা ও মৃত্যুবরণ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।