• সোমবার ০৪ মার্চ ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ২০ ১৪৩০

  • || ২২ শা'বান ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
বিজিবি দিবসের কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী আব্দুল কাদের জিলানীর (র.) মাজার জিয়ারতে প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ নির্বাচনে যথাযথ দায়িত্ব পালন করায় ডিসিদের ধন্যবাদ প্রধানমন্ত্রীর ভোক্তাদের যেন হয়রানি হতে না হয়, সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে বাজারে নজরদারি-মজুত ঠেকাতে ডিসিদের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর শান্তিরক্ষা মিশনে অবদান রেখে সুনাম বয়ে আনছে সশস্ত্র বাহিনী যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় সশস্ত্র বাহিনীকে সক্ষম করে তোলা হচ্ছে বেইলি রোডে অগ্নিকান্ড কবলিত ভবনে ফায়ার এক্সিট না থাকায় হতাশ নতুন নতুন অপরাধ দমনে পুলিশকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ ‘কোনো একটি জিনিস না খেলে রোজা হবে না, এ মানসিকতা পাল্টাতে হবে’

নাশকতার কারণে বিএনপি নিজেই ধ্বংস হবে: উবায়দুল মোকতাদির

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ৮ ডিসেম্বর ২০২৩  

আন্দোলনের নামে বিএনপি ধ্বংসাত্মক ও নাশকতা করছে বলে অভিযোগ করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর-বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী এমপি। তিনি বলেছেন, তাদের ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপে সরকারের কিছুই হবে না। ধ্বংসাত্মক ও নাশকতার কারণে বিএনপি নিজেই ধ্বংস হয়ে যাবে।

শুক্রবার (৮ ডিসেম্বর) ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্ত দিবস উপলক্ষে সকালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহরের বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে একে একে মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। পরে দিবসটি উপলক্ষে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কে জাতীয় ও মুক্তিযুদ্ধের পতাকা নিয়ে আনন্দ র‍্যালি করেন সর্বস্তরের মুক্তিযোদ্ধারা।

উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী বলেন, ‘বাঙালি বীরের জাতি। এর প্রমাণ করেছে মহান মুক্তিযুদ্ধে।

তিনি বলেন, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ সেক্টর। সীমান্তবর্তী অনেক জেলা মুক্ত হওয়ার আগে ব্রাহ্মণবাড়িয়া মুক্ত হয়। সেইদিন শহরের পুরাতন কাচারি প্রাঙ্গণে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীন বাংলাদেশের বিজয় পতাকা উত্তোলন করেন মুক্তিযুদ্ধের দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলীয় কাউন্সিলের চেয়ারম্যান জহুর আহমেদ চৌধুরী। এসময় তৎকালীন আওয়ামী লীগের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা ভেবেছিলাম বিএনপির অংশগ্রহণ ছাড়া নির্বাচন উৎসব মুখর হবে কিনা? এ নিয়ে প্রথমে আমার ব্যক্তিগত শঙ্কা ছিল। কিন্তু আমি মনে করি সেই শঙ্কা আর নেই। মানুষ উৎসব মুখর পরিবেশে কেন্দ্রে আসবে এবং ৫০ ভাগ ভোট পড়বে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

এসময় জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীসহ স্থানীয় বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

পরে দিবসটি উপলক্ষে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কে জাতীয় পতাকা ও মুক্তিযুদ্ধের পতাকা নিয়ে আনন্দ র‍্যালি করেন বীর মুক্তিযোদ্ধারা। র‍্যালিটি শহরের সুর সম্রাট ওম্মদ অলাউদ্দিন খাঁ সঙ্গীতাঙ্গনে গিয়ে শেষ হয়। পরে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ (সদর-বিজয়নগর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি র.আ.ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী। সভায় সর্বস্তরের মুক্তিযোদ্ধা সহ তাদের সন্তানেরা উপস্থিত ছিলেন।