• বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩০ ১৪৩১

  • || ০৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার

৩০০ টন পাথর নিয়ে মালবাহী ট্রেন পদ্মা সেতু পাড়ি দিল ৫ মিনিটে

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

মাদারীপুর প্রতিনিধি: ৩০০ টন পাথর নিয়ে মালবাহী ট্রেন পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়েছে মাত্র ৫ মিনিট ১১ সেকেন্ডে। ট্রেনটি ৮০ কিলোমিটার গতিবেগে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া স্টেশন থেকে বিরতিহীনভাবে পদ্মা সেতু হয়ে মাদারীপুরের শিবচরের ২টি স্টেশন হয়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পৌছায় মাত্র ৪৬ মিনিটে। এদিন ২ ধাপে ২ স্তরের গতিতে পরীক্ষা চালানো হয়।  পরীক্ষা সফলভাবে সম্পন্ন হওয়ায় প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের মাঝে সন্তোষ বিরাজ করছে। এরআগে শুক্রবার  দেশে সর্বোচ্চ ১২৫ কিলোমিটার গতির রেকর্ড গড়ে পদ্মা সেতু দিয়ে সভলভাবে পরীক্ষামূলকভাবে চলে যাত্রীবাহী ট্রায়াল ট্রেন ।
সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়,  ১০ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করবেন ঢাকা-ভাঙ্গা নতুন এই রেলপথের। সেই উপলক্ষ্যে গত ৭ সেপ্টেম্বর রেল মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন,চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরীসহ অসংখ্য সংসদ সদস্যর উপস্থিতিতে ঢাকার কমলাপুর থেকে ফরিদপুরের ভাঙ্গা পর্যন্ত ৬০ কিলোমিটার গতিতে রেলের ট্রায়াল সফলভাবে সম্পন্ন হয়। প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনকে ঘিরে শুক্রবার যাত্রীবাহী ট্রেন দিয়ে সফলভাবে সর্বোচ্চ ১২৫ কিলোমিটার গতিতে যাত্রীবাহী ট্রেনের ট্রায়াল সফল হয়। শনিবার ৫টা বগিতে ৩শ টন পাথরবোঝাই করে মালামালবাহী ট্রেন দিয়ে ট্রায়াল করা হয়। প্রতি বগিতে পাথর ছিল ৬০ টন।  প্রথমে সকাল ৭টা ৩৮ মিনিটে ৬০ কিলোমিটার গতিবেগে ট্রেনটি ভাঙ্গা স্টেশন থেকে ছেড়ে গিয়ে ৮টা ৩০ মিনিটে মাওয়া স্টেশনে পৌছায়। এসময় পদ্মা সেতু পার হতে ট্রেনটি ৬ মিনিট ৩০ সেকেন্ড সময় নেয়। অপরদিকে মাওয়া স্টেশন থেকে ট্রেনটি সমপরিমান মালামাল নিয়ে সকাল ৯ টা ৫ মিনিটে ছেড়ে ৯টা ৫১ মিনিটে ভাঙ্গা স্টেশনে পৌছায়। ভাঙ্গা পর্যন্ত পৌছাতে সময় লাগে মাত্র ৪৬ মিনিট।  এসময় পদ্মা সেতু পার হতে সময় লাগে মাত্র ৫ মিনিট ১১ সেকেন্ড। ট্রায়াল চলাকালে মধ্যকার কোন স্টেশনেই থামেনি ট্রেনটি। দূর্ঘটনা এড়াতে রেলপথজুড়ে ছিল পুলিশি নিরাপত্তা ব্যবস্থা।
এ প্রকল্পের রেল লাইন(ট্রাক) ইনচার্জ সৈয়দ শওকত হোসেন উপরে উল্ল্যেখিত তথ্যর সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আজকের ট্রেনের ৫টি বগি ছিল। প্রতিটি বগিতে ৬০ টন পাথর ছিল। এই পাথর নিয়ে ট্রায়াল ট্রেনটি সফলভাবে মাত্র ৫ মিনিট ১১ সেকেন্ডে মাওয়া থেকে ভাঙ্গা পৌছায়।
মাওয়া ভাঙ্গা সেকশনের প্রকল্প ব্যবস্থাপক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাঈদ আহমেদ জানান, আজ  আমরা ২ ধাপে ট্রায়াল করেছি। প্রথমবার ৬০ কিলোমিটার গতিবেগে পরেরবার ৮০ কিলোমিটার গতিবেগে। সফলভাবে এই ট্রায়াল সম্পন্ন হয়েছে।