• মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ২১ ১৪৩০

  • || ২৩ শা'বান ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
বিজিবিদের চেইন অব কমান্ড মেনে কাজ করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর এখানে এলেই মনটা ভারী হয়ে যায়- বিজিবি দিবসে প্রধানমন্ত্রী বিশ্বমানের স্মার্ট বাহিনী হিসেবে গড়ে তুলতে চাই বিজিবিকে বিজিবি দিবসের কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী আব্দুল কাদের জিলানীর (র.) মাজার জিয়ারতে প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ নির্বাচনে যথাযথ দায়িত্ব পালন করায় ডিসিদের ধন্যবাদ প্রধানমন্ত্রীর ভোক্তাদের যেন হয়রানি হতে না হয়, সেদিকে দৃষ্টি দিতে হবে বাজারে নজরদারি-মজুত ঠেকাতে ডিসিদের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর শান্তিরক্ষা মিশনে অবদান রেখে সুনাম বয়ে আনছে সশস্ত্র বাহিনী যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় সশস্ত্র বাহিনীকে সক্ষম করে তোলা হচ্ছে

মাদারীপুরে চুরি হওয়া ১৪টি ব্যাটারিসহ গ্রেপ্তার ১

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৮ জানুয়ারি ২০২৪  

মাদারীপুর প্রতিনিধি: মাদারীপুরে মোবাইল কোম্পানীর টাওয়ারে ব্যবহৃত চোরাইকৃত ১৪টি ব্যাটারিসহ মারুফ শেখ (১৮) নামে এক  তরুণকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। শুক্রবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে রাজৈর উপজেলার ঘোষালকান্দি এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার মারুফ একই এলাকার নান্নু শেখের ছেলে।
গোয়েন্দা পুলিশের সূত্র জানায়, দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন মোবাইল কোম্পানীর টাওয়ার থেকে ব্যাটারি চুরি বিক্রি করে আসছিল একটি চক্র। এমন তথ্যের ভিত্তিতে অভিযানে চালায় জেলার গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক রায়হান সিদ্দিকী এবং উপপরিদর্শক আব্দুর রশিদসহ সঙ্গীয় ফোর্স। এ সময় ঘোষালকান্দি এলাকার খালিয়া সড়কের মাহাবুব শেখের মালিকানাধীন ইজিবাইক তৈরির কারখানার ভেতর তল্লাসী করে মোবাইল কোম্পানীর টাওয়ারে ব্যবহৃত চোরাই বিভিন্ন ক্যাটাগরির ১৪টি ব্যাটারি উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে মারুফ শেখ নামে এক তরুণকে আটক করা হয়।
মাদারীপুর জেলার গোয়েন্দা পুলিশের উপপরিদর্শক রায়হান সিদ্দিকী বলেন, ব্যাটারি চুরির ঘটনায় দুজনকে আসামি করে রাজৈর থানায় মামলা দায়ের করেছে ডিবি। একজন গ্রেফতার হলেও পলাতক রয়েছে এজাহারনামীয় আরও এক আসামি। এ ছাড়া মামলায় অজ্ঞাত আরও দুজনকে আসামি করা হয়েছে। গ্রেপ্তার মারুফকে আইনী প্রক্রিয়া শেষে আদালতে পাঠানো হয়েছে।
মাদারীপুরের পুলিশ সুপার মাসুদ আলম বলেন, দীর্ঘদিন এই চক্রটি বিভিন্ন এলাকার মোবাইল কোম্পানীর টাওয়ারের ব্যাটারি চুরির পর বিক্রি করে আসছে। এই চক্রটি শুধু জেলা নয়, জেলার বাইরে একই কাজ করে। এই চক্রের বাকি সদস্যদের ধরতে গোয়েন্দা পুলিশের পাশাপাশি থানা পুলিশও কাজ করছে।