• বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩০ ১৪৩১

  • || ০৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার

চা না কফি, ত্বকের জন্য কোনটি ভালো?

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  

চা কিংবা কফি, দু’টিই আমাদের দেশের অত্যন্ত জনপ্রিয় পানীয়। আগে এই দৌড়ে চা এগিয়ে থাকলেও বর্তমানে কফির জনপ্রিয়তার পাল্লা কিন্তু কম ভারী নয়! কেউ চা বেশি পছন্দ করেন, কেউ আবার কফি। আবার এমনও অনেকে আছেন যারা এই দুই পানীয়ই পান করতে ভীষণ পছন্দ করেন। তবে আমরা যা খাই, তার প্রভাব পড়ে আমাদের ত্বকেও। চা কিংবা কফিও এর ব্যতিক্রম নয়।

ত্বক ভালো রাখার জন্য কোন পানীয় বেশি উপকারী, কোনটি ত্বকে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারে, জানা আছে কি? যেহেতু এ ধরনের পানীয় নিয়মিত পান করার অভ্যাস থাকে তাই ত্বকের সুরক্ষা বজায় রাখার জন্য এগুলো জানা জরুরি। চলুন জেনে নেওয়া যাক চা কিংবা কফির প্রভাব ত্বকের ওপর কেমন হতে পারে-

চায়ে ট্যানিন থাকে যা আয়রন শোষণ করে নেয়। যে কারণে অতিরিক্ত চা খেলে দেখা দিতে পারে অ্যানিমিয়ার মতো সমস্যা। আপনি যদি প্রতিদিন চা পান করেন তবে ত্বক কিছুটা হলেও শুষ্ক হয়ে যাবে।


অনেকে চায়ের সঙ্গে দুধ মিশিয়ে খেতে পছন্দ করেন। এই দুধ চায়ে থাকা ট্যানিনের কারণে দাঁত কালো হয়ে যেতে পারে। এর পাশাপাশি অতিরিক্ত চা পান করলে ত্বকের রঙ নষ্ট হয়ে যাওয়ার ভয় থাকে।

চা কি কেবল ত্বকের ক্ষতি করে? একদমই নয়। এটি ত্বককে নানাভাবে ভালো রাখতেও কাজ করে। যেমন চায়ে থাকে ক্যাটেচিন নামের এক বিশেষ ধরনের উপাদান। এই উপাদান ত্বকের লালচে ভাব, ফোলা ভাব এবং চুলকানি কমাতে বেশ সহায়। নিয়মিত গ্রিন টি খেলে তা ত্বকে বয়সের ছাপ পড়তে বাধা দেয়।

এদিকে কফিতে থাকে ফেনলিক অ্যাসিড। এই অ্যাসিড কাজ করে শক্তিশালী বার্ধক্যরোধক হিসাবে। এটি সূর্যের আলোর কারণে ত্বকে সৃষ্ট হওয়া ক্ষতি দূর এবং বলিরেখা দূর করতে কাজ করে। তবে কফি অতিরিক্ত খাবেন না। দিনে এক কাপ কফি খাওয়াই যথেষ্ট।

ত্বকের রঙ বজায় রাখতে কাজ করে উপকারী পানীয় কফি। এতে রয়েছে ক্লোরোজেনিক অ্যাসিড ও মেলানয়ডিনস। এই দুই উপাদান ত্বকের রঙ ঠিক রাখতে কাজ করে। ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতেও সহায়তা করে এই উপাদান। তবে কফির সঙ্গে দুধ-চিনি কম মেশানোই ভালো। সবচেয়ে ভালো হয় ব্ল্যাক কফি খাওয়ার অভ্যসা করলে।

কফির উপকারিতার পাশাপাশি কিছু অপকারিতাও রয়েছে। যেমন এতে থাকে উচ্চমাত্রায় ক্যাফেইন, তাই কফি একটু বেশি খেলেই বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। চা এবং কফির ভেতরে কোনটি আমাদের ত্বকের জন্য ভালো তা নির্ধারণ করা কঠিন। কারণ এই দুই পানীয়েরই রয়েছে ভালো ও খারাপ দুই দিক। এগুলো ত্বকের জন্য কীভাবে কাজ করবে তা অনেকটা নির্ভর করে আপনি কখন এবং কতটা পান করছেন।