• সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ ||

  • বৈশাখ ৯ ১৪৩১

  • || ১২ শাওয়াল ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশ সর্বদা প্রস্তুত : প্রধানমন্ত্রী দেশীয় খেলাকে সমান সুযোগ দিন: প্রধানমন্ত্রী খেলাধুলার মধ্য দিয়ে আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে: রাষ্ট্রপতি শারীরিক ও মানসিক বিকাশে খেলাধুলা গুরুত্বপূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী বিএনপির বিরুদ্ধে কোনো রাজনৈতিক মামলা নেই: প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে পশুপালন ও মাংস প্রক্রিয়াকরণের তাগিদ জাতির পিতা বেঁচে থাকলে বহু আগেই বাংলাদেশ আরও উন্নত হতো মধ্যপ্রাচ্যের অস্থিরতার প্রতি নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর প্রধানমন্ত্রী আজ প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ উদ্বোধন করবেন

গাজায় আগামী সপ্তাহে যুদ্ধবিরতির আশা বাইডেনের

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আশা করছেন গাজা দ্বিতীয় দফা যুদ্ধবিরতির ঘোষণা আগামী সপ্তাহেই আসতে পারে। নিউইয়র্ক সিটিতে সাংবাদিকদের সঙ্গে মত বিনিময়কালে এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

বাইডেন বলেন, আমরা গাজায় পরবর্তী একটি যুদ্ধবিরতির বেশ কাছাকাছি রয়েছি। আশা করছি আগামী সোমবারের মধ্যেই (যুদ্ধবিরতির) ঘোষণা আসবে। তার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জেক সুলিভান তাকে এই তথ্য জানিয়েছেন বলে তিনি সাংবাদিকদের জানান। খবর আল জাজিরা

বাইডেন এমন এক সময়ে এই মন্তব্য করলেন, যখন মাত্র কয়েক দিন পরেই মিশিগান রাজ্যে প্রাইমারি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এই রাজ্যে ফিলিস্তিনপন্থী ভোটাররা বাইডেনের ইসরায়েলপন্থী অবস্থানকে দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়েছেন।  

এর আগে গাজায় আবারও যুদ্ধবিরতি চুক্তিতে পৌঁছানোর লক্ষ্যে প্যারিসে বৈঠক করেন ইসরায়েল, কাতার, মিসর ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিরা। সেই বৈঠকের ধারাবাহিকতায় কাতারের রাজধানী দোহায় হামাস এবং ইসরায়েলি প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা করেছেন মিসর ও কাতারের কর্মকর্তারা।

আলোচনা সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রের বরাতে মিসরের একাধিক সংবাদমাধ্যমও আসন্ন রমজান মাসের আগেই গাজায় দ্বিতীয় দফায় যুদ্ধবিরতির ঘোষণা আসতে পারে মর্মে খবর প্রকাশ করেছে।

চলমান যুদ্ধে হামাসের সঙ্গে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষা বাহিনীর প্রথম যুদ্ধবিরতিটি ছিল গত নভেম্বরের ২৫ তারিখ থেকে ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত। সে সময় নিজেদের কব্জায় থাকা ২ শতাধিক জিম্মির মধ্যে অর্ধেক জিম্মিকে ছেড়ে দিয়েছিল হামাস, বিনিময়ে ইসরায়েলের বিভিন্ন কারগারে বন্দি দেড় শতাধিক ফিলিস্তিনিকে মুক্তি দিয়েছিল ইসরায়েলও।