• শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩১ ১৪৩১

  • || ০৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা

‘ডোপ টেস্ট’ কী?

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

মাদক বা এ্যলকোহল জাতীয় কিছু কিছু নেশাকর পন্য আছে যার রেশ শরীরকে অতিরিক্ত শক্তির যোগান দেয় এবং শরীরে থেকে যায়। আর এগুলোই ডোব টেস্টের মাধ্যেমে ধরা হয়।
খেলাধুলায় আরটিফিসিয়াল কিছু ব্যবহার করে লাভবান হওয়ার সুযোগ নাই। আর তাই যখনই কোনো খেলোয়াড়ের ওপর ক্রীড়া নিয়ন্ত্রণ সংস্থাগুলোর সন্দেহ হয় বা সন্দেহের অভিযোগ তোলা হয়। তখন তারা তাকে সোকজ করে থাকে। পরবর্তীতে ওই খেলোয়াড়কে ডোব টেস্টের সম্মুখীন হতে হয়। যদি ফলাফল পজেটিভ হয় তাহলে তাকে অর্থদণ্ড, বরখাস্ত বা কারাভোগ দিয়ে থাকে ক্রিড়া আইন অনুযায়ী।

প্রযুক্তির উন্নতির কারণে অনেক ক্রীড়াবিদই এমন সব নিষিদ্ধ পদার্থ ব্যবহার করেন, যার ফলে ক্রীড়া নৈপুন্যে সাময়িক ভাবে অতিরিক্ত শক্তির যোগান পায়।

যেখানে দেহের স্বাভাবিক শক্তির চেয়ে অতিরিক্ত শক্তি সঞ্চারিত হয়, যার ফলে স্বাভাবিক ক্রীড়াবিদরা হেড়ে যায়। এই নিষিদ্ধ কর্মকান্ড প্রতিহত করার জন্যে প্রতিটা আন্তর্জাতিক ক্রীড়াবিদকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের বিভিন্ন পরীক্ষার সম্মুখীন হতে হয়, একেই ডোপিং টেষ্ট বলে।