• বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩০ ১৪৩১

  • || ০৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার

‘অনাকাঙ্ক্ষিত স্পর্শ’ করার বিষয়ে মুখ খুললেন সায়ন্তিকা

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে শুটিং করতে এসেই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার স্বীকার হয়েছেন কলকাতার নায়িকা সায়ন্তিকা ব্যানার্জি। এ কারণে তার ও জায়েদ খান অভিনীত নতুন ছবি ‌‘ছায়াবাজ’র কাজ শেষ না করেই কলকাতায় চলে গেছেন এ নায়িকা।
নানা মাধ্যমে চর্চা হচ্ছে ‘অনাকাঙ্ক্ষিত স্পর্শ’ করার জন্য শুটিং বন্ধ রেখে কলকাতায় চলে গেছেন সায়ন্তিকা ব্যানার্জি। কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে, সিনেমার কোরিওগ্রাফারের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ এনেছেন তিনি। বিষয়টি নিয়ে সিনেমাটির পরিচালক, প্রযোজক, কোরিওগ্রাফার কথা বললেও এবার প্রথম মুখ খুললেন নায়িকা সায়ন্তিকা। জানালেন নতুন তথ্য।

মনিরুল ইসলাম প্রযোজিত ‘ছায়াবাজ’ সিনেমার শুটিং শুরু হয়েছিল গানের শুটিং দিয়ে। গত ৩০ আগস্ট ঢাকায় আসেন সায়ন্তিকা। তারপর ঢাকা থেকে জায়েদ খানের সঙ্গে কক্সবাজারে যান। সেখানেই শুটিং শুরু হয় গানের। কয়েক দিন শুটিংয় করে অভিনেত্রী কলকাতায় চলে যাওয়ার পর সোশ্যালেসহ নানা মাধ্যমে বিভিন্ন খবর রটতে থাকে। কিন্তু আসলেই কি হেনস্তার শিকার হয়েছেন সায়ন্তিকা?

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সায়ন্তিকা জানিয়েছেন কোরিওগ্রাফার মাইকেলের নাম উঠেছে, কিন্তু সমস্যা মূল জায়গায়। এ টালি তারকা বলেন, বলা যেতে পারে নায়িকাকে হয়রানি হতে হয়েছে প্রযোজকের অব্যবস্থার জন্য। প্রথমে মাস্টার এসেছিলেন নাচের দৃশ্য শুটিংয়ের জন্য। কিন্তু আর্থিক সমস্যার জন্য চলে যান তিনি। তারপর মাইকেল নামে বাচ্চা ছেলেটি আসে।

এরপরই এ নায়িকা শুটিং বন্ধ রেখে চলে যাওয়ার ব্যাপারে কথা বলেন। জানান, তিনি একজন পেশাদার শিল্পী। তাই এ রকম করার কথা ভাবতেই পারেন না। সায়ন্তিকা বলেন, মাইকেল আমার কাছ থেকে অনুমতি না নিয়ে আমার হাত ধরে আমাকে সরাতে এসেছিল। তখন সবার সামনেই আমি বাধা দেই। মূল সমস্যা হচ্ছে সিনেমার প্রযোজক।

সায়ন্তিকার ভাষ্যমতে— বারবার প্রযোজক মনিরুলের সঙ্গে টেকনিক্যাল সমস্যা নিয়ে কথা বলার জন্য যোগাযোগ করেছিলেন তিনি। কিন্তু কোনো সাড়া পাননি। প্রযোজকের কোনো পরিকল্পনা ও ব্যবস্থা নেই।

টালিউডের এই নায়িকা বলেন, কক্সবাজারে গিয়ে দু’দিন অপেক্ষা করেছি। প্রযোজকের কোনো পরিকল্পনা ছিল না। হঠাৎ বলা হয় নাচের দৃশ্যের শুটিং করা হবে। বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করার পরও মনিরুল যখন উত্তর দেয়নি, তখন বলেছিলাম মাইকেলের সঙ্গে এভাবে কাজ করব না আমি। আর এতকিছুর পরও প্রযোজক জানিয়েছিলেন মাইকেলকে নিয়েই কাজ করতে হবে।

বাংলাদেশে এটাই প্রথম কাজ সায়ন্তিকার। কিন্তু প্রথম কাজই খুব তিক্ততার। তারপরও কাজ শেষ করবেন। এ ব্যাপারে বলেন, যদি সঠিক পদ্ধতিতে কাজ করেন তাহলে আমি অবশ্যই সিনেমার কাজটি শেষ করব। তার আগে আমাকে চিত্রনাট্য, শটসহ নানা বিষয় ভালো করে জানাতে হবে।