• শুক্রবার ১৪ জুন ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩০ ১৪৩১

  • || ০৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বন্ধুর ছুরিকাঘাতে ছাত্রলীগ নেতা নিহত

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৫ মে ২০২৩  

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বন্ধু রায়হানের ছুরিকাঘাতে জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইকরাম আহমেদ (২৩) নিহত হয়েছেন। বুধবার (২৪ মে) সন্ধ্যায় শহরের মুন্সেফ পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
এ ঘটনায় পুলিশ ঘাতক রায়হানকে (১৮) আটক করেছে। সে ঢাকার বংশাল এলাকার জিয়াউল করিমের ছেলে।

অন্যদিকে, নিহত ইকরাম আহমেদ সরাইলের নোয়াগাঁও ইউনিয়নের তেরাকান্দা গ্রামের মাসুদ আহম্মেদের ছেলে। তারা সপরিবারে শহরের কালাইশ্রী পাড়া এলাকায় একটি বহুতল ভবনে ভাড়া থাকতেন।  

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইকরাম আহমেদ ছাত্রলীগের ঢাকা উত্তর মহানগরের সাবেক সহ-সভাপতি রেদোয়ান আনসারী রিমুর অনুসারী ছিলেন এবং ঘাতক রায়হান রিমুর দূর সম্পর্কের আত্মীয় হন। সেই সুবাদে তাদের দুজনেরই নিজ নিজ বাড়িতে যাওয়া-আসা ছিল।  

বুধবার (২৪ মে) সন্ধ্যার দিকে মোটর সাইকেলের চাবি নিয়ে বিতর্কের জেরে এক পর্যায়ে রায়হান রিমু ইকরাম আহমেদের বুকে ছুরিকাঘাত করে। পরে স্থানীয়রা তাকে দ্রুত জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।  

এদিকে জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ইকরাম হত্যার প্রতিবাদে ও দ্রুত বিচারের দাবিতে শহরের প্রধান সড়ক হাসপাতাল রোড বন্ধ করে বিক্ষোভ করে। এ সময় ওই এলাকায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সোহরাব আল হোসাইন জানান, এ ঘটনায় ঘাতক রায়হানকে আটক করা হয়েছে। ঘটনার তদন্ত চলছে। পরবর্তী যে কোনো ধরেণর বিশৃঙ্খলা এড়াতে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ  মোতায়েন করা হয়েছে।