• বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৩০ ১৪৩১

  • || ০৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ প্রধানমন্ত্রীকে বদলে যাওয়া জীবনের গল্প শোনালেন সুবিধাভাগীরা আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার

২৭২ কোটি টাকার চোরাচালান পণ্য জব্দ, ৩৪ বাংলাদেশি ও ভারতীয় আটক

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ৩ মে ২০২৩  

এপ্রিল মাসে দেশের সীমান্ত এলাকায় চোরাচালানে জড়িত থাকার অভিযোগে ১৩৭ জনকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। এছাড়া অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রমের দায়ে ২৬ বাংলাদেশি নাগরিক ও ৮ ভারতীয় নাগরিককে আটক করা হয়েছে।

সীমান্ত এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২৭২ কোটি ৩১ লাখ ৫০ হাজার টাকা মূল্যের বিভিন্ন প্রকারের চোরাচালান পণ্যসামগ্রী এবং অস্ত্র ও গোলাবারুদ জব্দ করেছে বিজিবি। মঙ্গলবার (২ মে) বিজিবির জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. শরিফুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, জব্দ চোরাচালান পণ্যের মধ্যে রয়েছে ৩৩ কেজি ৭৯৯ গ্রাম সোনা, ১৬ কেজি ৯৮৫ গ্রাম রুপা, দুই লাখ ৯৭ হাজার ৪৩টি প্রসাধনী সামগ্রী, ৯ হাজার ৬৫৬টি ইমিটেশন গহনা, ২৬ হাজার ৯৪৩টি শাড়ি, ৯ হাজার ৩২৭টি থ্রিপিস/শার্টপিস/চাদর/কম্বল, পাঁচ হাজার ৪১৭টি তৈরিপোশাক, তিন হাজার ৩৯০ ঘনফুট কাঠ, তিন হাজার ৩৯৭ কেজি চা-পাতা, ৭৫ হাজার ৪৯০ কেজি কয়লা, দুই হাজার ১৯৮ কেজি কারেন্ট/সুতার জাল, তিনটি কষ্টিপাথরের মূর্তি, চারটি ট্রাক/কাভার্ডভ্যান, ছয়টি পিকআপ, ১৩টি প্রাইভেটকার, ২৪টি সিএনজি/ইজিবাইক ও ৭৪টি মোটরসাইকেল।

উদ্ধার অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে দুটি পিস্তল, একটি বন্দুক, চারটি ম্যাগাজিন, তিনটি সকল প্রকার গান, ৩১টি পেট্রলবোমা ও ১১ রাউন্ড গুলি।

এছাড়া গত মাসে বিপুল পরিমাণ মাদকদ্রব্য জব্দ করেছে বিজিবি। জব্দ মাদক ও নেশাজাতীয় দ্রব্যের মধ্যে রয়েছে ১১ লাখ এক হাজার ৬১৯ ইয়াবা, ২৬ কেজি ৪১৮ গ্রাম ক্রিস্টাল মেথ আইস, ১৯ কেজি ৯০৫ গ্রাম হেরোইন, ২৩ হাজার ৪৩৭ বোতল ফেনসিডিল, ২২ হাজার ৯০৩ বোতল বিদেশি মদ, চার হাজার ৮৫৯ ক্যান বিয়ার, এক হাজার ৮৪৩ কেজি গাঁজা, পাঁচ লাখ ৯৭ হাজার ১৭৫ প্যাকেট বিড়ি ও সিগারেট, ১৯ হাজার ২৯২টি নেশাজাতীয় ইনজেকশন, ছয় হাজার ২৪৮টি অ্যানেগ্রা/সেনেগ্রা ট্যাবলেট, চার হাজার ৭৬৬টি ইস্কাফ সিরাপ, এক হাজার ১৭৯ বোতল এমকেডিল/কফিডিল, ১৩ লাখ ২১ হাজার ৫৬ পিস বিভিন্ন প্রকার ওষুধ এবং দুই লাখ ১৫ হাজার ৮৫০টি অন্যান্য ট্যাবলেট।