• সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ ||

  • বৈশাখ ৯ ১৪৩১

  • || ১২ শাওয়াল ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশ সর্বদা প্রস্তুত : প্রধানমন্ত্রী দেশীয় খেলাকে সমান সুযোগ দিন: প্রধানমন্ত্রী খেলাধুলার মধ্য দিয়ে আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে: রাষ্ট্রপতি শারীরিক ও মানসিক বিকাশে খেলাধুলা গুরুত্বপূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী বিএনপির বিরুদ্ধে কোনো রাজনৈতিক মামলা নেই: প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে পশুপালন ও মাংস প্রক্রিয়াকরণের তাগিদ জাতির পিতা বেঁচে থাকলে বহু আগেই বাংলাদেশ আরও উন্নত হতো মধ্যপ্রাচ্যের অস্থিরতার প্রতি নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর প্রধানমন্ত্রী আজ প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ উদ্বোধন করবেন

স্টেন্টের দাম বাড়ানো হয়নি: স্বাস্থ্য সচিব

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  

হৃদপিণ্ডের রক্তনালীতে ব্লকের চিকিৎসায় ব্যবহৃত স্টেন্টের দাম বাড়ানো হয়নি বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব জাহাঙ্গীর আলম।

মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) সচিবালয়ে হৃদরোগীদের স্ট্যান্ট নিয়ে বৈঠকের পর সচিব সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, আজ (মঙ্গলবার) ওষুধের দাম নিয়ে আমরা পুরোপুরি আলোচনা করতে পারিনি, সময়ের স্বল্পতা ছিল। তবে স্টেন্টের দাম নিয়ে আলোচনা করেছি। এখানে এ খাতের অংশীজনরা ছিলেন। আমরা বলেছি যে স্টেন্টের দামের বিষয়ে সরকার যেমন জনগণের স্বার্থ দেখছে, তেমনই ব্যবসায়ীদের স্বার্থ দেখবে।

সচিব বলেন, ‘ব্যবসায়ীরা আইনগতভাবে ব্যবসা করবেন, আবার যারা স্টেন্ট ব্যবহার করছেন। তাদের ওপর যাতে বাড়তি কোনো চাপ না পড়ে, অস্বাভাবিক দামে যাতে কিনতে না হয়, সেটাও দেখতে হবে।’

বৈঠকে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে জানিয়ে সচিব বলেন, মূলত যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপ থেকে এ দুটো পণ্য আমদানি করা হয়। বাংলাদেশে আমেরিকা থেকে আসা স্টেন্টের ব্যবহার ৭৫ শতাংশ। বাকিটা আসে ইউরোপ থেকে।

জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ইউরোপের পণ্যের ডিস্ট্রিবিউটাররা আজকের বৈঠকে অংশ নেননি। তবে তাদের সঙ্গেও আমরা কথা বলবো। স্টেন্টের দাম আগে যেটা ছিল, সেটাই আমরা রেখেছি। আর লাভ করতে গেলে একটা মার্কার প্রাইস দিতে হয়। তাদের প্রশাসনিক খরচ, ভ্যাট ও ট্যাক্স মিলিয়ে একটা মার্কার প্রাইস ১ দশমিক ২ শতাংশ নির্ধারণ করা আছে।

স্বাস্থ্যসেবা সচিব আরও বলেন, ‘আমদানি মূল্যের সঙ্গে একটা যুক্ত করা আছে। কাজেই স্টেন্টের দাম আগে যেটা ছিল, সেটাই থাকবে। প্রতিবেশী দেশ ভারতের সঙ্গে সমন্বয় করে এ দাম নির্ধারণ হয়েছিল। আমি মনে করি, এতে সরবরাহকারী ও ভোক্তা দুই পক্ষই লাভবান হবে।’