• সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ ||

  • বৈশাখ ৯ ১৪৩১

  • || ১২ শাওয়াল ১৪৪৫

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশ সর্বদা প্রস্তুত : প্রধানমন্ত্রী দেশীয় খেলাকে সমান সুযোগ দিন: প্রধানমন্ত্রী খেলাধুলার মধ্য দিয়ে আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে: রাষ্ট্রপতি শারীরিক ও মানসিক বিকাশে খেলাধুলা গুরুত্বপূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী বিএনপির বিরুদ্ধে কোনো রাজনৈতিক মামলা নেই: প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে পশুপালন ও মাংস প্রক্রিয়াকরণের তাগিদ জাতির পিতা বেঁচে থাকলে বহু আগেই বাংলাদেশ আরও উন্নত হতো মধ্যপ্রাচ্যের অস্থিরতার প্রতি নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর প্রধানমন্ত্রী আজ প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ উদ্বোধন করবেন

প্রধানমন্ত্রীর সামনে উন্নয়ন পরিকল্পনা তুলে ধরে প্রশংসায় ভাসছেন মেয়র

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  

বরিশাল হবে মেগা সিটি। ৫টি ভাগে বিভক্ত হলে চমৎকার প্রশাসনিক কাঠামো হবে। নগরবাসীর দাবী অনুযায়ী গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে এক্সিলেটর সহ ফুটওভার ব্রিজ, রিকশা ও ইজিবাইক ষ্ট্যান্ডসহ গুরুত্বপূর্ণ প্রায় সব প্রস্তাবনাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সামনে তুলে ধরেছেন বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ খোকন সেরনিয়াবাত। এ জন্য তাকে প্রাণঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন নগরীর আপামর সাধারণ মানুষ ও নগর চিন্তাবিদদের প্রায় সকলেই।

নাগরিক সমাজের প্রতিনিধি কাজী মিজানুর রহমান, এনায়েত হোসেন শিবলু, শাহ সাজেদা, সুজন সম্পাদক রফিকুল আলম সহ নগরবাসী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সামনে বরিশালের উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় সব পরিকল্পনাই তুলে ধরেছেন মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ খোকন সেরনিয়াবাত। তার প্রায় ১০ মিনিটের বক্তব্যে তিনি গুরুত্বপূর্ণ প্রায় সব বিষয়ই তুলে ধরেছেন দাবী করে নগর চিন্তাবিদরা বলেন, আমাদের চিন্তা ও প্রয়োজন সবটাই তুলে ধরেছেন মেয়র খোকন সেরনিয়াবাত। আমরা আনন্দিত ও আমাদের ও বরিশালবাসীর পক্ষ থেকে মেয়রকে অভিনন্দন।

এ সময় সড়কের সাধারণ মানুষ, রিক্সা চালকসহ নগরবাসীর সকলের চোখেমুখে ছিলো আনন্দের অনুভূতি। ফেসবুক লাইভে তারা অনেকেই মেয়রের বক্তব্য শুনেছেন দাবী করে বলেন, এতোদিনে আমরা আবার একজন মেয়র পেয়েছি। খোকন সেরনিয়াবাত আমাদের মেয়র, সাধারণ মানুষের মেয়র।

নগর চিন্তাবিদদের একজন কাজী মিজানুর রহমান বলেন, ২০২১ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর আমরা পদ্মা সেতুর সুফল ও উন্নয়নের বরিশাল শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করেছিলাম। সাহিত্য বাজার ও বরিশাল সাহিত্য সংসদ এর এই আয়োজনে বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসক এর সামনে বরিশাল সার্কিট হাউস মিলনায়তনে বরিশালের উন্নয়নে অনেকগুলো প্রস্তাবনা তুলে ধরেছিলাম। মেয়র খোকন সেরনিয়াবাত এর বক্তব্যে সেগুলোসহ আরো অনেক বিষয় যুক্ত হয়েছে। আমাদের চাহিদা ও প্রয়োজনকে গুরুত্ব দিয়ে মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ আসলে আমাদেরই গুরুত্ব দিয়েছেন। তাই তার প্রতি প্রাণঢালা অভিনন্দন ও ভালোবাসা আমাদের পক্ষ থেকে।

স্মার্ট হবে স্থানীয় সরকার – নিশ্চিত হবে সেবার অধিকার শ্লোগানকে সামনে রেখে স্থানীয় সরকার দিবসের উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত সমাবেশে বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ বলেছেন, বরিশাল মহানগরীর আয়তন বৃদ্ধি করে ৫টি জোনে ভাগ করতে হবে। বরিশালে বেগম ফজিলাতুন্নেছা মেগা সিটি করাসহ নগরবাসীর প্রয়োজনীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তুলে ধরে বরিশাল মহানগরীর উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর সামনে একগুচ্ছ প্রস্তাবনা তুলে ধরেন তিনি। যার সবটাই বরিশালবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী। গত ২৫ ফেব্রুয়ারী ঢাকায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবসের সভায় মেয়র এসব প্রস্তাবণা  বাস্তবায়নে সরাসরি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদৃষ্টি কামনা করেন। এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়াও স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে বিসিসি মেয়র আবুল খায়ের আবদুল্লাহ খোকন সেরনিয়াবাত প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, বরিশাল মহানগরীতে দিন দিন জনসংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার চাপ সামলাতে এখানে ফজিলাতুন্নেছা মেগা সিটি বাস্তবায়ন হলে এটি হবে দক্ষিণাঞ্চলের সর্ববৃহৎ মেগা সিটি প্রকল্প। মেয়র বলেন, বরিশাল নগরীর সড়কগুলো খুবই সরু। এ কারণে যানজট নিত্য দিনের। চলাচলের সুবিধার্থে এবং যানজট এড়াতে গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলোর দুই পাশ অধিগ্রহণ করে সড়ক সম্প্রসারণ করা জরুরি প্রয়োজন। পরিত্যক্ত জরাজীর্ণ ঝূঁকিপূর্ণ নগর ভবনে চলছে সিটি করপোরেশনের কার্যক্রম। আধুনিক সুবিধা সংবলিত বহুতল নগর ভবন নির্মাণের দাবি তোলেন মেয়র।

তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতু চালুর পর বরিশালসহ দক্ষিণাঞ্চলে যানবাহনের চাপ বহুগুণ বেড়েছে। নগরীর যানজট নিরসন ও দুর্ঘটনা রোধে একটি ফ্লাইওভার এবং ৩টি ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণ জরুরি। তার মতে, বরিশালে আধুনিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নেই। সঠিকভাবে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা হচ্ছে না। এতে পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। ভূমি অধিগ্রহণপূর্বক দুটি গার্ভেজ গ্রাউন্ড নির্মাণ জরুরি হয়ে পড়েছে। নগরীতে আধুনিক শপিং মল না থাকায় নগরবাসী আধুনিক বিপনন সুবিধা থেকে বঞ্চিত। কয়েকটি আধুনিক শপিংমল নির্মাণসহ ভ্রাম্যমাণ ব্যবসায়ীদের জন্য একটি হকার্স মার্কেট নির্মাণ জরুরি। নগরীর চারপাশে ৪টি সার্ফেস ওয়াটার ট্রিটমেন্ট সিস্টেম নির্মাণের মাধ্যমে নদীর পানি বিশুদ্ধ করে নগরবাসীর মাঝে সরবরাহ করার প্রস্তাব দেন তিনি। নগরীতে মেয়র ভবন না থাকায় একটি মেয়র ভবন নির্মাণেরও দাবি তোলেন বিসিসি মেয়র।

শুধু তাই নয় বরিশালের বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের খুলনা নির্ভরতা দূর করতে আঞ্চলিক কার্যালয় নির্মাণসহ আরো অনেক গুলো প্রস্তাবণাসহ লিখিত সুপারিশপত্র প্রধানমন্ত্রীর হাতে দেয়া হয়েছে বলে জানান উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহমুদুল হক খান মামুন। তিনি বলেন, পদ্মা সেতুর সুফল পেতে ও বাণিজ্যিক বরিশাল গড়ে  তুলতে প্রয়োজনীয় সবকিছুই প্রধানমন্ত্রীর কাছে জমা দিয়েছেন আমাদের মেয়র আবুল খায়ের আব্দুল্লাহ। তিনি এবং পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক দুজনেই তাদের নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে নিরলস কাজ করে চলছেন বলে জানান খান মামুন।