• বৃহস্পতিবার   ০৭ জুলাই ২০২২ ||

  • আষাঢ় ২৩ ১৪২৯

  • || ০৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

মাদারীপুর দর্পন

পদ্মা সেতুর টোল নিয়ে ভাবনা নেই, খুশিতে মানুষ

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ১৮ মে ২০২২  

পদ্মা সেতুর টোল নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া থাকলেও ভোগান্তি ছাড়া দ্রুত সময়ে পদ্মা পাড়ি দেবার সুযোগ দুয়ারে ভেবেই খুশি তারা। অনেকেই বলছেন, সেতু নির্মাণের খরচের টাকা দ্রুত উঠে যাওয়াই ভালো।

অপেক্ষার প্রহর শেষ। জুনেই খুলছে পদ্মা সেতুর সড়ক। অবসান হচ্ছে, নৌপথে নদী পারাপারের দুর্ভোগ। এরইমধ্যে, প্রজ্ঞাপনে কোন কোন যানবাহনে কত টাকা টোল গুণতে হবে স্পষ্ট করেছে সেতু বিভাগ। যান বাহন ভেদে ভিন্ন টোলের পরিমাণ।

যেখানে বড় বাস ২৪শ’ টাকা, মাইক্রোবাস ১৩শ’ টাকা, ছোট ট্রাক ১৬শ’, মাঝারি ২১শ’ এবং বড় ট্রাক সাড়ে পাঁচ হাজার টাকা নির্ধারণ হয়েছে।

এই টোল নিয়ে সাধারণ মানুষের ভাবনা কি? জানতে চাওয়া হয়েছিল।

মানুষের ভাবনা “যদি টোলের অংকটা কম হয় তাহলে সেটা দীর্ঘ সময় ধরে চলবে। যদি এমন হয়  টোলটার টাকা বাড়িয়ে দ্রুত রিকভারি করে নতুন আরেকটা সিদ্ধান্ত নেয়, তাহলে অবশ্যই সরকারকে ধন্যবাদ জানাব।”

আবার, টোলের পরিমাণ নিয়ে বিন্দুমাত্র ভাবনা নেই কারো কারো। নিজের টাকায় সেতু নির্মাণে সফলতায় ধন্যবাদ দিতে চান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে।

পদ্মা পাড়ে ঘুরতে আসা একজন জানান, “পদ্মা সেতু তো বিগ অ্যাচিপমেন্ট ফর আওয়ার কান্ট্রি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।”

একশ’ বছরের মেয়াদে এই সেতু উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে সাহায়ক হবে, এই প্রত্যাশা পদ্মা পাড়ের মানুষের।

নিজস্ব টাকায় নির্মিত হলেও এই সেতুতে মানুষের প্রত্যাশা অনেক। সেতুটি থেকে যে টোল আদায় হবে তা দিয়ে শুধু খরচের টাকা নয় বরঞ্চ এ থেকে লভ্যাংশও তুলতে চায় সরকার। আর সেটা যদি হয় তাহলে বাংলাদেশের উন্নয়নে এই সেতু হতে পারে একটি বড় মাইলফলক।