• শনিবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৯ ১৪২৯

  • || ০৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু ট্রাস্টের সভা বাংলাদেশ সবসময় ভারতের কাছ থেকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পায় কর ব্যবস্থাপনা তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ১০ টাকায় টিকিট কেটে চোখ পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী আইসিওয়াইএফ থেকে পাওয়া সম্মাননা প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর শিক্ষা ব্যবস্থা যাতে পিছিয়ে না যায় সে ব্যবস্থা নিচ্ছি প্রধানমন্ত্রীর কাছে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল হস্তান্তর প্লিজ যুদ্ধ থামান, সংঘাত থামাতে সংলাপ করুন: শেখ হাসিনা হানিফের সংগ্রামী জীবন নতুন প্রজন্মের রাজনৈতিক কর্মীদের দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত করবে মোহাম্মদ হানিফ ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন পরীক্ষিত নেতা

সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ নির্ধারণে জরিপ

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৪ নভেম্বর ২০২২  

দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ কোনটি, তা নতুন করে নির্ধারণের জন্য কাজ শুরু হচ্ছে আগামী শুক্রবার (২৫ নভেম্বর)। জরিপ অধিদপ্তরের ৩৫ জনের একটি দল ওইদিন বান্দরবানে গিয়ে দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ নির্ধারণে কাজ শুরু করবে।

সূত্রে জানা যায়, জরিপ দলের সদস্যরা ৪০ দিন ধরে বান্দরবানের রুমা ও থানচি উপজেলার পাহাড়গুলো পরিমাপ করে সর্বোচ্চ পাহাড়ের শীর্ষ বিন্দু নির্ণয় করবেন। দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ বান্দরবানের তাজিংডং নাকি সাকা হাফং জরিপের মধ্য দিয়ে সেই বিতর্কও নিরসন হবে বলে আশা সংশ্লিষ্টদের।

সূত্রে আরও জানা যায়, বান্দরবানের দুর্গম রুমা উপজেলায় অবস্থিত কেওক্রাডংকে এক সময় দেশের সর্বোচ্চ পাহাড় হিসাবে ধরা হতো।  বর্তমানে তাজিংডং পাহাড়কে সর্বোচ্চ বলা হচ্ছে। তবে পাহাড়ে গহীনে যারা ভ্রমণ করেন তাদের অনেকেই দীর্ঘদিন ধরে দাবি করে আসছেন তাজিংডং নয়, সাকা হাফং বা মদক তং দেশের সবচেয়ে উঁচু পর্বতশৃঙ্গ। এই বিতর্ক নিরসনের জন্য জরিপ অধিদপ্তর থেকে দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ নির্ণয়ের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সূত্রে আরও জানা জানা যায়, বাংলাদেশের সর্বোচ বিন্দু বা পর্বতশৃঙ্গ নির্ধারণ ও সরকারিভাবে পর্বতের উচ্চতা পরিমাপের জন্য ২০২২ সালের ১৭ মে বান্দরবানের জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভীন তিবরীজি বাংলাদেশ জরিপ অধিদপ্তরের সার্ভেয়ার জেনারেল অব বাংলাদেশের কাছে একটি পত্র পাঠায়। আর ওই পত্রে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ বিন্দু বা পর্বতশৃঙ্গ নির্ধারণ ও অন্যান্য পর্বতগুলোকে সরকারিভাবে পরিমাপ করে গেজেট প্রণয়নের জন্য অনুরোধ জানানো হয়। পত্রের পরিপ্রেক্ষিতে সম্মতি প্রকাশ করে সম্প্রতি জরিপ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (জরিপ) দেবাশীষ সরকার বান্দরবানের জেলা প্রশাসককে একটি পত্র পাঠান এবং বান্দরবানে এসে থানচি ও রুমা এলাকার পাহাড়সহ দুর্গম এলাকায় অবস্থিত পাহাড়গুলো পরিমাপের কথা জানান।

ওই পত্রে জরিপ দলের সদস্যরা প্রিসিশন টোটাল স্টেশন, আরটিকে-জিপিএস, স্ট্যাটিক জিপিএস, হ্যান্ড হেল্ড জিপিএস, আরটিকে রেডিও লিংক লেভেল মেশিনসহ উন্নত প্রযুক্তির মাধ্যমে পাহাড়ের গড় উচ্চতা নির্ণয় করবেন বলে জানান।

জরিপ অধিদপ্তরের উপ-সহকারী তত্ত্ববধায়ক এরশাদুল হক মণ্ডল এই দলের নেতৃত্ব দেবেন আর জরিপ দলটি বান্দরবানের থানচি ও রুমা উপজেলায় ৪০ দিন ধরে বিভিন্ন পাহাড়ের উচ্চতা পরিমাপ করবেন বলে জানান জেলা প্রশাসনের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সুরাইয়া আক্তার সুইটি।  

তিনি আরও জানান, শুক্রবার (২৫ নভেম্বর) জরিপ অধিদপ্তরের ৩৫ জনের একটি দল বান্দরবানে এসে দেশের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ নির্ধারণে কাজ শুরু করবে।