• শুক্রবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ২ ১৪২৮

  • || ০৯ সফর ১৪৪৩

মাদারীপুর দর্পন

খাদ্যে রাসায়নিক মিশ্রণ, মাদারীপুরে ৫ প্রতিষ্ঠানে জরিমানা

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০২১  

মাদারীপুর প্রতিনিধিঃ

মাদারীপুর জেলা সদরের মস্তফাপুর এবং রাজৈর উপজেলার আমগ্রাম এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান ভেজাল, ক্ষতিকর রাসায়নিক মিশ্রন এবং অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার উৎপাদন করায় ৫ টি কারখানাকে ১ লক্ষ ১৩ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

মঙ্গলবার(৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মাদারীপুর র‌্যাব ৮ এ অভিযান পরিচালনা করে। এ সকল কারখানায় পাউরুটি, বিস্কিটসহ বিভিন্ন ধরনের খাদ্য তৈরি করা হতো।

মাদারীপুর র‌্যাব ৮ এর পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানা গেছে, র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন এর 'বিশেষ মোবাইল কোর্ট সপ্তাহ-২০২১' পালন উপলক্ষ্যে 'ভোক্তা অধিকার ও সংরক্ষণ আইন ২০০৯’ বাস্তবায়ণের লক্ষ্যে র‌্যাব-৮, মাদারীপুর গোয়েন্দা নজরদারীর মাধ্যমে মাদারীপুর জেলার সদর থানার মস্তফাপুর এবং রাজৈর থানার আমগ্রাম বাজার এলাকার বিভিন্ন কারখানাতে ভেজাল, ক্ষতিকর রাসয়নিক মিশ্রন এবং অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার উৎপাদন সম্পর্কে তথ্য পায়। তথ্যের ভিত্তিতে মঙ্গলবার সকাল নয়টা থেকে বেলা ৩ টা পর্যন্ত এসকল এলাকায় অভিযান চালায় র‌্যাব।

র‌্যাবের আভিযানিক দলের কোম্পানী অধিনায়ক স্কোয়াড্রন লীডার মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলামের নেতৃত্বে ৫ টি ফ্যাক্টরিতে অভিযান চালিয়ে মাদারীপুর সদরের মস্তফাপুর এলাকার কারখানা মালিক আবু সায়েম মুন্সী, নাঈম ইসলাম, আবুল খায়ের, চরমুগুরিয়া এলাকার মো.আলী হোসেন এবং রাজৈর উপজেলার আমগ্রাম এলাকার প্রহলাদ দত্তকে আটক করে।

পরে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে খাদ্য পন্যে ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মিশ্রন, ভেজাল ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে উৎপাদন করায় ৫ জনকে জরিমানা করা হয়। পরে উদ্ধারকৃত ভেজাল খাদ্য ও ক্ষতিকারক খাদ্য সামগ্রী ধ্বংস করে র‌্যাব।

অভিযানে আরও উপস্থিত ছিলেন, মাদারীপুর ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক সুজন কাজী, রাজৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আনিসুজ্জামান,জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার ও  নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবিএম সরোয়ার রাব্বী।

র‌্যাবের আভিযানিক দলের কোম্পানী অধিনায়ক স্কোয়াড্রন লীডার মোহাম্মদ সাদেকুল ইসলাম জানান,'কারখানার মালিকদেরকে ভেজাল, ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মিশ্রন এবং অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার উৎপাদন করায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষন আইনে ১ লক্ষ ১৩ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করা হয়। পরবর্তীতে উদ্ধারকৃত ভেজাল ও ক্ষতিকারক খাদ্য সামগ্রী ধ্বংস করা হয়।'