• বৃহস্পতিবার   ০৭ জুলাই ২০২২ ||

  • আষাঢ় ২৩ ১৪২৯

  • || ০৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

মাদারীপুর দর্পন

নিজেদের মধ্যে আস্থা সংকটে ভুগছে বিএনপির নেতাকর্মীরা

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ১৮ মে ২০২২  

প্রায় ১৫ বছর ধরে রাষ্ট্র ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি ক্ষমতায় আসতে নানা রকম ছলচাতুরী আর সহিংসতার পথ অবলম্বন করায় মামলা ও গ্রেফতারে নেতাকর্মীদের নাজেহাল অবস্থা। 

বলা যায় জনগণ থেকে একঘরে হয়ে রয়েছে দলটি। হাজার বেড়াজালে দলটি এখন ভঙ্গুর প্রায়। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শোচনীয় পরাজয়ের পর আরো চাপে পড়ে দলটি। সবমিলিয়ে এখন কঠিন সংকটের সম্মুখীন দলটি। এ অবস্থায় বর্তমান সংকট কাটিয়ে নেতাকর্মীদের উজ্জীবিত করে আবার ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে বিএনপি। কিন্তু ঘুরে দাঁড়াতে গিয়ে নিজেদের মধ্যে আস্থার সংকটে ভুগছে দলটির নেতাকর্মীরা।

গত রোববার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) বাংলাদেশ লেবার পার্টি আয়োজিত এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে নিজেদের মধ্যে আস্থার সংকট এবং সন্দেহর কথা জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান।

তিনি বলেন, অনেকেই ঝরে যাবে। অনেকেই দালালি করবে, অনেকেই ষড়যন্ত্রের শিকার হবে। আবার অনেকেই লোভে পড়বে।

এছাড়া রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গত শনিবার ঢাকা জেলা বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ সমাবেশে দলটির ভাইস চেয়ারম্যান জয়নুল আবেদীন বলেছেন, আমার কানে একটা কথা এসেছে যে, আমাদের দলের মধ্যে ভাঙন ধরানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। হালুয়া-রুটি দেবে- এই লোভে কিছু লোক চলে যাবে। যদিও আমি এ ধরনের লক্ষণ দেখি না। তারপরও বলতে চাই, আপনারা যদি হালুয়া-রুটির লোভে চলে যান, দলের সঙ্গে বেইমানি করেন, এই বেইমানদের জায়গা বাংলাদেশের মাটিতে হবে না।

বিএনপির নেতারা বলছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে ঐক্যফ্রন্ট গঠন করা হলে ২০ দলীয় জোট ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিয়েছিল এবং নির্বাচনে অংশ নিয়েছিল। কিন্তু যে প্রত্যাশা নিয়ে ২০ দলীয় জোট ঐ ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিয়েছিল সে প্রত্যাশা পূরণ হয়নি। বরং তারা ষড়যন্ত্রের মধ্যে পড়েছিল বলে দলের অধিকাংশ নেতা মনে করেন। এ নিয়ে বিএনপিতে মেরুকরণও তৈরি হয়েছে।

তবে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে এবারো বিভিন্ন জোট গঠনের কথা ভাবছে বিএনপি। ফলে এবারো হয়তো স্বার্থান্বেষী কিছু নেতা আগের পথে পা বাড়াবে বলে শঙ্কা করছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। এ নিয়ে দলের বেশ কয়েকজন নেতার প্রতি সন্দেহ-অবিশ্বাস বাড়ছে বিএনপিতে।

বিএনপি সংশ্লিষ্টরা বলছেন, যাদের সন্দেহ করা হচ্ছে তাদের মধ্যে বিএনপির সাবেক একাধিক মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী আছেন। এমনকি স্থায়ী কমিটির একাধিক নেতার নামও এই তালিকায় রয়েছে বলে গুঞ্জন উঠেছে। শুধু বিএনপিতে নয়, ২০ দলীয় জোটের একাধিক শরিক দলের নেতারাও রয়েছে এই সন্দেহের তালিকায়।

বিশ্লেষকদের মতে, ভুল রাজনীতির কারণে বিএনপি এখন ‘চোরাগলিতে’ আটকে গেছে। দলের ভেতর বিভিন্ন ধরনের সংকট দেখা দিয়েছে। সাংগঠনিকভাবে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করলেও সুবিধা করতে পারছে না দলটি, বরং আরো কঠিন অবস্থার মধ্যে পড়ছে।