• শনিবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৯ ১৪২৯

  • || ০৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু ট্রাস্টের সভা বাংলাদেশ সবসময় ভারতের কাছ থেকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পায় কর ব্যবস্থাপনা তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ১০ টাকায় টিকিট কেটে চোখ পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী আইসিওয়াইএফ থেকে পাওয়া সম্মাননা প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর শিক্ষা ব্যবস্থা যাতে পিছিয়ে না যায় সে ব্যবস্থা নিচ্ছি প্রধানমন্ত্রীর কাছে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল হস্তান্তর প্লিজ যুদ্ধ থামান, সংঘাত থামাতে সংলাপ করুন: শেখ হাসিনা হানিফের সংগ্রামী জীবন নতুন প্রজন্মের রাজনৈতিক কর্মীদের দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত করবে মোহাম্মদ হানিফ ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন পরীক্ষিত নেতা

এশিয়ার সবচেয়ে বড় স্পোর্টস সিটি হবে আড়িয়াল খাঁর পাড়ে

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ১৬ নভেম্বর ২০২২  

শিবচর প্রতিনিধিঃ   আড়িয়াল খাঁ নদ সংলগ্ন মাদারীপুরের শিবচর ও ফরিদপুরের ভাঙ্গা-সদরপুরে ৩ হাজার একর জমিতে এশিয়ার বৃহৎ শেখ হাসিনা স্পোর্টস সিটি কাম অলিম্পিক ভিলেজ নির্মান হবে বলে জানিয়েছেন চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী এবং যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল।

মঙ্গলবার(১৫ নভেম্বর) দুপুরে প্রকল্প এলাকা পরিদর্শনে এসে এসব তথ্য জানান চীফ হুইপ ও প্রতিমন্ত্রী।

এসময় ফরিদপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান নিক্সন চৌধুরী ও  যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রনালয়ের সচিব মোঃ মেজবাহউদ্দিন উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মাদারীপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুনির চৌধুরী, ফরিদপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহাদাত হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক ঝোটন চন্দ চন্দ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: রাজিবুল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারন সম্পাদক ডা: মো: সেলিম প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিন প্রতিমন্ত্রী ও চীফ হুইপ শিবচর পৌরসভার জিমনেসিয়াম কাম ইনডোর স্টেডিয়ামের স্থান ও যুব উন্নয়ন প্রশিক্ষন কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। বিকেলে হাতির বাগান মাঠে ফুটবল টুর্নামেন্ট উপভোগ করেন ও বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরন করেন।

ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেল বলেন, 'আড়িয়াল খা নদ সংলগ্ন এলাকার ৩৩শ একর জমির উপর শেখ হাসিনা স্পোর্টস সিটি কাম অলিম্পিক ভিলেজ নির্মানের জন্য সম্ভ্যাবতা যাচাই চলছে। পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের পক্ষ থেকে এখানে সমীক্ষা চলছে। চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে তাদের রিপোর্ট পেলে কোথায় কোন স্থাপনা হবে তা নির্ধারন করা হবে। এ প্রকল্পটি শুধু দক্ষিন এশিয়াতেই নয় এশিয়ার মধ্যে একটি আইকনিক স্থাপনা হবে। এখানে অলিম্পিক ইভেন্ট,সাউথ এশিয়ান গেমস, এশিয়ান গেমস,কমনওয়েলথ গেমসসহ বড় বড় ইভেন্ট আয়োজনের জন্য যা যা প্রয়োজন সবই থাকবে। এখানে মাঠ , জিমনেশিয়াম, গলফ,আবাসন ব্যবস্থাসহ সকল কিছু এখানে থাকবে। ক্রিকেট,ফুটবলের শুধু মাঠই নয় প্রাকটিস মাঠও আলাদা থাকবে। সকল ধরনের খেলার ইনডোর প্রাকটিস মাঠ এখানে থাকবে। এখানে বিশ্বমানের শেখ হাসিনা স্পোর্টস সিটি গড়ে তোলা হবে।'

চীফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী বলেন, 'এখানে স্পোর্টস সিটি নির্মান হলে অর্থনৈতিক চাঞ্চল্য ও কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে।  এখানে যাদের বাড়ি ঘর পড়বে তাদের পূনর্বাসনের আওতায় আনা হবে। পদ্মা সেতুতে ক্ষতিগ্রস্থদের যেভাবে পূনর্বাসন করা হয়েছে এখানেও ক্ষতিগ্রস্থদের পূনর্বাসন করা হবে। প্রকল্পটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য সরকারের পক্ষ থেকে ৩ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। স্পোর্টস সিটি শুধু এ এলাকায় নয় সারাদেশেই অর্থনৈতিক পরিবর্তন আনবে।'