• শনিবার ২০ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৫ ১৪৩১

  • || ১২ মুহররম ১৪৪৬

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ২১ জুলাই স্পেন যাবেন প্রধানমন্ত্রী আমার বিশ্বাস শিক্ষার্থীরা আদালতে ন্যায়বিচারই পাবে: প্রধানমন্ত্রী কোটা সংস্কার আন্দোলনে প্রাণহানি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত করা হবে মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেখাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী পবিত্র আশুরা মুসলিম উম্মার জন্য তাৎপর্যময় ও শোকের দিন আশুরার মর্মবাণী ধারণ করে সমাজে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার আহ্বান মুসলিম সম্প্রদায়ের উচিত গাজায় গণহত্যার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়া নিজেদের রাজাকার বলতে তাদের লজ্জাও করে না : প্রধানমন্ত্রী দুঃখ লাগছে, রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও বলে তারা রাজাকার শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস আজ

সহিংসতাপ্রবণ শীর্ষ ৫০ দেশের তালিকায় যুক্তরাষ্ট্র

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

বিশ্বব্যাপী রাজনৈতিক সহিংসতা পরিমাপকারী এক নতুন গবেষণা অনুসারে বিশ্বের ৫০টি সবচেয়ে বেশি সংঘাতপূর্ণ দেশের মধ্যে একমাত্র পশ্চিমা দেশ হিসেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নাম উঠে এসেছে।

এই গবেষণা পরিচালনাকারী যুক্তরাষ্ট্রের ইউসকনসিন অঙ্গরাজ্যভিত্তিক প্রতিষ্ঠান আর্মড কনফ্লিক্ট লোকেশন অ্যান্ড ইভেন্ট ডেটা প্রজেক্ট বা এসিএলইডি-এর মতে সাম্প্রতিক বছরগুলিতে আমেরিকায় ক্রমবর্ধমান রাজনৈতিক সহিংসতা এবং অতি-ডানপন্থী গোষ্ঠীর বিস্তারের কারণে দেশটি এই তালিকায় ঢুকে পড়েছে।

গবেষণা কাজে বিশ্বের ২৪০টি দেশ ও অঞ্চলের তথ্য সংগ্রহ করা হয়। সেপ্টেম্বরের শুরু থেকে পূর্ববর্তী এক বছরের তথ্য সংগ্রহ করে এই গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় এ বছর সহিসংতা ২৭ শতাংশ বেড়েছে। রাজনৈতিক সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে ১ লাখ ৩৯ হাজার।  সংগৃহীত তথ্য বিশ্লেষণে দেখা যায় দেশগুলোতে রাজনৈতিক কারণে সহিংসতা বেড়েছে।

চারটি মানদণ্ডের ওপর ভিত্তি করে প্রতিবছর এই তালিকা প্রকাশ করে এসিএলইডি। এই চারটি মানদণ্ড হলো (১) সহিংসতায় নিহতের ঘটনা, (২) জনসাধারণের জন্য ঝুঁকি, (৩) সহিংসতাপ্রবণ এলাকার আয়তন, (৪) সশস্ত্র গোষ্ঠীর সংখ্যা। এবারের গবেষণা বলছে গতবছর মোটামুটি সব দেশেই কমপক্ষে একটি হলেও রাজনৈতিক সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে।  

গবেষণা তালিকার ৫০টি সহিংসতাপ্রবণ দেশকে  ‘এক্সট্রিম’ বা চরম,  ‘হাই’ বা উচ্চ এবং  ‘টার্বুলেন্ট ’ বা উত্তাল এই তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে। গবেষণা অনুসারে তালিকার শীর্ষে থাকা মিয়ানমারে সবচেয়ে বেশি সশস্ত্র সংগঠন রয়েছে।  এরপর রয়েছে সিরিয়া ও মেক্সিকো। ‘উত্তাল’ ক্যাটাগরিতে রয়েছে লিবিয়া, ঘানা ও চাদ এবং যুক্তরাষ্ট্র।  

সহিংস দেশের তালিকায় যুক্তরাষ্ট্রের যুক্ত হওয় প্রসঙ্গে এসিএলইডির জনসংযোগ বিভাগের প্রধান স্যাম জোনস বলেন,  যুক্তরাষ্ট্র তালিকার যে ধাপে স্থান পেয়েছে, সেই তালিকায় সাধারণত সহিংসতাপ্রবণ এলাকা হিসেবে পরিচিত। এই ধাপে মধ্য আফ্রিকা প্রজাতন্ত্রের মতো দেশ রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র এই তালিকায় স্থান পাওয়ার মধ্য দিয়ে বুঝা গেল যে রাজনৈতিক সহিংসতা শুধু দরিদ্র ও অগণতান্ত্রিক দেশের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই।

মারাত্মক মহামারি, সামাজিক ন্যায়বিচারের জন্য প্রতিবাদ এবং একটি বিভক্ত রাষ্ট্রপতি নির্বাচন এই তিনে মিলে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে একটি নিখুঁত সংকটের বছর হিসেবে পরিচিত ২০২০ সাল থেকে এসিএলইডি মার্কিন রাজনৈতিক সহিংসতার ওপর নজর রাখছে। তবে কিছু মার্কিন বিশেষজ্ঞ মনে করেন এসিএলইডি'র তথ্য সংগ্রহ প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।