• সোমবার   ৩০ জানুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৬ ১৪২৯

  • || ০৮ রজব ১৪৪৪

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
সারদায় কুচকাওয়াজে প্রধানমন্ত্রীকে অভিবাদন সারদায় প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শিশুদের জন্য নিরাপদ মাতৃভূমি করতে সরকার অঙ্গীকারবদ্ধ প্রধানমন্ত্রী আরসিসির ৭ উন্নয়ন প্রকল্প উদ্বোধন করবেন আজ রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূতের বিদায়ী সাক্ষাৎ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে যাচ্ছেন ৪৬০ পুলিশ কর্মকর্তা বিএনপির দুর্নীতি নিয়ে সজীব ওয়াজেদ জয়ের ফেসবুক স্ট্যাটাস রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রী ২৫ উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করবেন রোববার ডিজিটালাইজেশনে বাংলাদেশে বিপ্লব ঘটে গেছে : প্রধানমন্ত্রী আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু হবে : বিদায়ি সুইস রাষ্ট্রদূতকে প্রধানমন্ত্রী

যে শর্তে রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনায় রাজি ইউক্রেন

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ৯ নভেম্বর ২০২২  

রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনার বিষয়ে রাজি হয়েছেন ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি। তবে এজন্য শর্ত দিয়েছেন, বলেছেন ইউক্রেনের দখল করা জমি ফিরিয়ে দিলে রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনা সম্ভব।

যুক্তরাজ্যের দাবি, ফ্রন্টলাইনে নতুন করে সেনা পাঠাচ্ছে রাশিয়া। নিজেদের ডিফেন্স লাইনও তারা শক্তি করছে। তারই মধ্যে জেলেনস্কি জানিয়েছেন, এখনো প্রতিদিনই নতুন নতু প্রক্রিয়ায় জমি দখলের চেষ্টা চালাচ্ছে রাশিয়া। পূর্ব এবং দক্ষিণ পূর্ব ইউক্রেনে এখনো তীব্র লড়াই চলছে। কিন্তু ইউক্রেনের সেনা রাশিয়াকে এক ছটাক জমিও দখল করতে দেয়নি। এরপরেই জেলেনস্কি জানিয়েছেন, রাশিয়ার সঙ্গে শান্তিপূর্ণ আলোচনায় বসতে তিনি প্রস্তুত। কিন্তু তার আগে ইউক্রেনের সার্বভৌম অঞ্চল ফিরিয়ে দিতে হবে। রাশিয়া ইউক্রেনের যে জমি দখল করেছে, তা ইউক্রেনকে দিয়ে দিতে হবে।

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ অবশ্য জানিয়ে দিয়েছেন, রাশিয়া মানুষের দাবি মেনেই কয়েকটি এলাকাকে প্রথমে স্বাধীন ঘোষণা করেছিল এবং পরে তা নিজেদের শাসনাধীনে নিয়ে এসেছে। ওই অঞ্চলে গণভোটের আয়োজন করা হয়েছে। সাধারণ মানুষ রাশিয়ার অংশ হওয়ার পক্ষে ভোট দিয়েছেন। তারপরেই রাশিয়া তা অধিগ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়। ফলে সেই অঞ্চল ইউক্রেনকে ফিরিয়ে দেওয়ার প্রশ্ন নেই।

জেলেনস্কির দাবি, রাশিয়ার সঙ্গে তিনি একাধিকবার আলোচনায় বসতে চেয়েছেন। শান্তিপূর্ণ সমাধানের পথ খোঁজার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু রাশিয়া তাতে রাজি হয়নি। জেলেনস্কি ইউক্রেনের জমি ফেরতের যে দাবি করেছেন, তার মধ্যে ক্রাইমিয়াও আছে কি না, তা অবশ্য স্পষ্ট নয়। ২০১৪ সালে ক্রাইমিয়া দখল করেছিল রাশিয়া।

এক ভিডিও বার্তায় জেলেনস্কি জানান, যুদ্ধ বন্ধে রাশিয়ার সঙ্গে ‘সত্যিকারের’ আলোচনায় বসতে রাজি আছেন তিনি; যে আলোচনার মাধ্যমে ইউক্রেনের অখণ্ডতা পুনঃপ্রতিষ্ঠা হবে। জেলেনস্কির এমন মন্তব্যের পর ইউক্রেনের নিরাপত্তা কর্মকর্তা ওলেক্সি দানিলোভ জানালেন প্রেসিডেন্টের দেওয়া পূর্বশর্ত আগে মানতে হবে।

জেলেনস্কি রাশিয়ার কাছে ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়ে বলেন, রাশিয়া হামলা চালিয়ে ইউক্রেনের অর্থনৈতিক ও অবকাঠামোগত যেসব ক্ষতি করেছে সেগুলোর ক্ষতিপূরণ দিতে হবে এবং যারা যুদ্ধাপরাধ সংঘটিত করেছে করেছে তাদের বিচারের মুখোমুখি দাঁড় করাতে হবে।