• শনিবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৯ ১৪২৯

  • || ০৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু ট্রাস্টের সভা বাংলাদেশ সবসময় ভারতের কাছ থেকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পায় কর ব্যবস্থাপনা তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ১০ টাকায় টিকিট কেটে চোখ পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী আইসিওয়াইএফ থেকে পাওয়া সম্মাননা প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর শিক্ষা ব্যবস্থা যাতে পিছিয়ে না যায় সে ব্যবস্থা নিচ্ছি প্রধানমন্ত্রীর কাছে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল হস্তান্তর প্লিজ যুদ্ধ থামান, সংঘাত থামাতে সংলাপ করুন: শেখ হাসিনা হানিফের সংগ্রামী জীবন নতুন প্রজন্মের রাজনৈতিক কর্মীদের দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত করবে মোহাম্মদ হানিফ ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন পরীক্ষিত নেতা

প্রবাসী নারীর কাছ থেকে ২০ লাখ টাকা হাতিয়ে নিলো ‘জিনের বাদশা’

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ৩ সেপ্টেম্বর ২০২২  

ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দেখে পাওনা টাকা ফিরে পেতে জিনের বাদশাহর দ্বারস্থ হন জর্ডান প্রবাসী এক নারী। কিন্তু পাওনা টাকা ফেরত তো দূরের কথা, উল্টো জিনের বাদশাহই ওই নারীর কাছ থেকে হাতিয়ে নেয় ২০ লাখ টাকা। এ ঘটনায় কথিত জিনের বাদশাসহ দুজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতাররা হলেন— নেছার উল্ল্যাহ (২২) ও মো. আমান উল্ল্যাহ (২৮)। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ও গোয়েন্দা কার্যক্রমের ভিত্তিতে বুধবার (৩১ আগস্ট) ভোরে ঢাকার দক্ষিণখান থেকে অভিযুক্ত এ প্রতারক চক্রের দুই সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

শুক্রবার (২ সেপ্টেম্বর) এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন সিআইডির অতিরিক্ত বিশেষ পুলিশ সুপার (মিডিয়া) আজাদ রহমান।

আজাদ রহমান বলেন, বিজ্ঞাপন দেখে বিভিন্ন লোকজন প্রলুব্ধ হন। সব সমস্যা সমাধান করতে পারে- এমন বিজ্ঞাপনে দেওয়া ফোন নম্বর দেখে বাদীর মা যিনি জর্ডান প্রবাসী, তিনি কল দিয়ে জানতে চান পাওনা টাকা আদায় করে দিতে পারবেন কি না। জিনের বাদশাহ চক্রের সদস্যরা পারবেন বলে মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে এবং প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন কৌশলে তার কাছ থেকে ২০ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন।

রাজধানীর ভাটারা থানায় দায়ের করা মামলার পরিপ্রেক্ষিতে দক্ষিণখান থানার শিয়ালডাঙ্গা ও কাওলা থেকে প্রতারক চক্রের নেছার উল্ল্যাহ ও মো. আমান উল্ল্যাহকে বুধবার রাতে গ্রেফতার করে সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম বিভাগের সিরিয়াস ক্রাইম ইউনিট। এ দুই প্রতারক জিনের বাদশা পরিচয় দিয়ে অসংখ্য লোকের কাছ থেকে প্রতারণা করে বিপুল পরিমাণ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে স্বীকার করেছেন। এ চক্রের অন্যান্য সদস্যদের তথ্য সংগ্রহ ও গ্রেফতারে কার্যক্রম অব্যাহত আছে বলেও জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।