• শনিবার   ০৩ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৯ ১৪২৯

  • || ০৯ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বঙ্গবন্ধু ট্রাস্টের সভা বাংলাদেশ সবসময় ভারতের কাছ থেকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পায় কর ব্যবস্থাপনা তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ১০ টাকায় টিকিট কেটে চোখ পরীক্ষা করালেন প্রধানমন্ত্রী আইসিওয়াইএফ থেকে পাওয়া সম্মাননা প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর শিক্ষা ব্যবস্থা যাতে পিছিয়ে না যায় সে ব্যবস্থা নিচ্ছি প্রধানমন্ত্রীর কাছে এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল হস্তান্তর প্লিজ যুদ্ধ থামান, সংঘাত থামাতে সংলাপ করুন: শেখ হাসিনা হানিফের সংগ্রামী জীবন নতুন প্রজন্মের রাজনৈতিক কর্মীদের দেশপ্রেম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত করবে মোহাম্মদ হানিফ ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একজন পরীক্ষিত নেতা

‘জলবায়ু পরিবর্তনজনিত অভিঘাতের প্রতিশ্রুত সহযোগিতা পাচ্ছি না’

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৪ নভেম্বর ২০২২  

ওইসিডিভুক্ত রাষ্ট্রগুলোর উন্নয়নের প্রভাবে জলবায়ু পরিবর্তনে ক্ষতিগ্রস্ত অন্যান্য দেশগুলোর মতো বাংলাদেশও প্রতিশ্রুত সহযোগিতা পাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।
বুধবার (২৩ নভেম্বর) দুপুরে এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

শাহরিয়ার বলেন, বাংলাদেশ এমডিজি লক্ষ্যমাত্রা সফলভাবে বাস্তবায়ন করতে পেরেছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। তিনি (শেখ হাসিনা) খুব অল্প সংখ্যক নেতাদের মধ্যে একজন যিনি এমডিজি বাস্তবায়নের সময় এবং এসডিজি বাস্তবায়নের সময় ছিলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ তার যাত্রার ৫০ বছরে ৩ হাজার ডলারের কাছাকাছি মাথাপিছু আয় নিয়ে এসেছে, আরও অনেক সূচক আছে। আমরা মনে করি, একটি দেশের হাজার বছরের নির্যাতনের ইতিহাসের পরে মাত্র ৫০ বছরে বাংলাদেশ যে জায়গায় এসেছে, পৃথিবীর খুব কম রাষ্ট্র আছে যারা এত কম সময়ে এতদূর আসতে পেরেছে এবং সেটাও টেকসই উন্নয়ন প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে।

তিনি আরও বলেন, শিল্পায়নের ইতিহাসে পর্যালোচনা করলে একসময় টেকসই উন্নয়ন, জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাবের বিষয়ে সচেতনতা, বর্জ্য পরিশোধনাগারের (ইটিপি) বাধ্যবাধকতা ছিল না। যে যেভাবে পেরেছে এক পর্যায়ে এসে তাদের যথেষ্ট উন্নতি, যথেষ্ট রিজার্ভ, যথেষ্ট সক্ষমতা হয়েছে, তারপরে তারা বাস্তবায়ন করেছে। আমরা প্রতিটি পা ফেলছি হিসেব করে। প্রতিটি পা ফেলছি টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, এখানে আমাদের যে সহযোগিতাগুলো পাওয়ার কথা ছিল, পৃথিবীর সবচেয়ে ক্ষমতাধর ৩৮টি রাষ্ট্রের সংগঠন ওইসিডি ১৯৭০ সালে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল জাতিসংঘে— তারা তাদের জিডিপির শূন্য দশমিক ৭ শতাংশ উন্নয়ন সহযোগিতা দেবে পিছিয়ে পড়া রাষ্ট্রগুলোকে। এই ৩৮টির মধ্যে মাত্র ৫টি দেশ নরওয়ে, সুইডেন, ডেনমার্ক, নেদারল্যান্ডস ও লুক্সেমবার্গ তাদের প্রতিশ্রুতি রেখেছে।