• রোববার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১০ ১৪২৯

  • || ২৮ সফর ১৪৪৪

মাদারীপুর দর্পন

অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা ঝুঁকি বেশি

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ১৪ আগস্ট ২০২২  

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখেই জাতীয় শোক দিবসে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। সবাইকে ব্যাগ কিংবা বাক্স নিয়ে না আসার অনুরোধ জানাচ্ছি।

রোববার (১৪ আগস্ট) বেলা সাড়ে ১১টায় রাজধানীর ধানমন্ডি-৩২ নম্বরে ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে নিরাপত্তা ব্যবস্থার সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ শেষে তিনি এসব কথা বলেন।

শফিকুল ইসলাম বলন, আশপাশের প্রতিটি জায়গা নিরাপত্তাবলয়ের ভেতরে রয়েছে। কয়েকদিন ধরে আশপাশে যত মেস-হোটেল রয়েছে প্রতিদিন রাতে প্রতিটিতে একাধিকবার আমরা নিরাপত্তার জন্য তল্লাশি করি। এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতি যাওয়ার পর মূলত আমরা এখানে সাধারণ মানুষের জন্য উন্মুক্ত করে দেবো। রাসেল স্কয়ার থেকে সাধারণ মানুষ প্রবেশ করবে। শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে পশ্চিম দিক দিয়ে বের হয়ে যাবে। ৩২ নম্বর ঘিরে চারদিকে আমাদের নিরাপত্তা যে বেষ্টনী সেটা থাকবে।

তিনি বলেন, সবধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, সোয়াটসহ গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা নিয়োজিত রয়েছে। লেকে নৌ-টহলও অবস্থান করবে। এছাড়া ৩২ নম্বরে ঢোকার আগে যথাযথ নিরাপত্তা তল্লাশির মাধ্যমে মানুষ ঢুকতে পারে সেই ব্যবস্থা থাকবে। এক্ষেত্রে আমার অনুরোধ থাকবে মানুষ যেন ব্যাগ ও বাক্স নিয়ে না আসে এবং প্রবেশ করার চেষ্টা না করে। এছাড়াও কোভিড এখনো রয়েছে। তাই সবাই যেন স্বাস্থ্যগত দিকটা বিবেচনা করে সবাই যেন মাস্ক পরে আসে।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ৩২ নম্বরকে কেন্দ্র করে নিরাপত্তাবলয় তৈরি করা হয়েছে। পুলিশ কন্ট্রোল রুম, মেডিকেল ক্যাম্প, ওয়াসা থেকে সুপেয় পানির ব্যবস্থা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তার ঝুঁকির কথা চিন্তা করে ডিএমপি কমিশনার বলেন, আপনারা জানেন প্রধানমন্ত্রীর ওপর একাধিকবার হামলা করা হয়েছে। উনাকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। তাই বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা রয়েছে সেগুলো আমরা জানানোর প্রয়োজন মনে করছি না।

ডিএমপি কমিশনার শফিকুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশে কেন পৃথিবীর অন্যান্য দেশের প্রধানমন্ত্রীর চেয়ে বেশি নিরাপত্তা ঝুঁকিতে থাকেন। আমরা সেই চিন্তা মাথায় রেখে সবসময়ই বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা করে থাকি। এটি তার একটি স্থায়ী প্রোগ্রাম। প্রতিবছর ১৫ আগস্টে উনি এখানে আসবেন। এটা মাথায় রেখেই আমরা নিরাপত্তা ব্যবস্থা আগে থেকেই ঠিক করে রাখি। এছাড়া বর্তমান আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট দেশের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট সবকিছু বিবেচনা করে আমরা মনেকরি নিরাপত্তার বিষয়টি বেশ প্রকট।

আগস্টেই হামলার ঘটনা ঘটে এবার তেমন কিছুর শঙ্কা রয়েছে কি-না, জানতে চাইলে ডিএমপি কমিশনার বলেন, এসবি, ডিজিএফআই, এনএসআইসহ যেসব গোয়েন্দা সংস্থা আমাদের রয়েছে কোনো সংস্থা থেকেই সুনির্দিষ্ট হুমকির তথ্য আমাদের জানা নেই। আমরা আশা করছি দৃশ্যমান কিংবা প্রকট কোনো হুমকি নেই। সারাদেশে পুলিশে যারা কাজ করেন আমরা আগস্ট মাস এলেই সমস্ত দিক থেকেই নিরাপত্তার বিষয়টি জোর দিয়ে থাকি। কারণ এই মাসেই বঙ্গবন্ধু হত্যাসহ বিভিন্ন ঘটনা ঘটেছে।

এ সময় ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।