• রোববার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১০ ১৪২৯

  • || ২৮ সফর ১৪৪৪

মাদারীপুর দর্পন

না ফেরার দেশে পদ্মা-সেতু, বেঁচে রইলো স্বপ্ন

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৫ জুলাই ২০২২  

গত ১৮ জুলাই দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলার ইমার উদ্দিন কমিউনিটি ক্লিনিকে একসঙ্গে তিন নবজাতকের জন্ম দেন সাধিনা বেগম। তাদের নাম রাখা হয় স্বপ্ন-পদ্মা-সেতু।

তাদের জন্মের পর চিকিৎসা নিয়ে সাধিনা বেগমসহ সুস্থ ছিল ওই তিন নবজাতক।

তবে রোববার (২৪ জুলাই) রাত সোয়া ৯টায় বিরামপুর উপজেলার জোতবানী ইউনিয়নের টেগরা গ্রামে নিজ বাসায় শিশু সেতুর মৃত্যু হয়। এর আগে ৫ দিন বয়সী শিশু পদ্মা শনিবার (২৩ জুলাই) সন্ধ্যায় বাসায় মারা যায়।

ওই শিশুদের বাবা জাহিদুল ইসলাম বলেন, শনিবার সন্ধ্যায় হঠাৎ করে পদ্মা মারা গেলে রোববার (২৪ জুলাই) দুপুরে বিরামপুরের চিকিৎসক জাকিরুলের কাছে শিশু স্বপ্ন ও সেতুকে নিয়ে যাই চিকিৎসার জন্য। সেখানে চিকিৎসক ৫ দিনের ওষুধ দিয়ে সরকারি হাসপাতালে বাচ্চাগুলোকে আধাঘণ্টা অক্সিজেন দিতে বলেন। পরে হাসপাতালে নিয়ে গিয়ে বাচ্চাগুলোকে অক্সিজেন দিয়ে স্ত্রীকেসহ বাড়িতে পাঠিয়ে কাজে চলে যাই। পরে রাতে বাড়িতে এসে খাওয়া-দাওয়া করে বাড়ি থেকে বের হয়ে গেলে রাত সোয়া ৯টায় আমার শাশুড়ি ফোন দিয়ে সেতুর মারা যাওয়ার বিষয়টি জানায়।

তিনি আরও বলেন, সোমবার সকালে পদ্মার পাশেই সেতুর দাফন করা হয়। সেতুর মৃত্যুর বিষয়টি রাতে চিকিৎসককে জানালে স্বপ্নকে ঠিকমত ওষুধ খাওয়ানোর পরামর্শ দেন। সমস্যা বেশি হলে রংপুর নিয়ে যেতে বলেছেন।

বিরামপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পরিমল কুমার সরকার বলেন, বিষয়টি শুনে ওই শিশুগুলোর জন্য কিছু আর্থিক সাহায্য করেছি। ২টি শিশু মারা গেছে, আরেক জন বেঁচে আছে। তাই তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রংপুর ও অথবা দিনাজপুর নিয়ে যেতে বলেছি। প্রয়োজনে আরও আর্থিক সহযোগিতা দেওয়া হবে।  

উল্লেখ্য, চলতি মাসের ১৮ জুলাই দিনাজপুরের বিরামপুর ইমার উদ্দিন কমিউনিটি ক্লিনিকে একসঙ্গে তিন কন্যা সন্তানের জন্ম দেন প্রসূতি সাধিনা বেগম। জন্মের পর তাদের নাম রাখা স্বপ্ন, পদ্মা ও সেতু। জন্মের পর পরই চিকিৎসক তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর এম. আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন। হাসপাতালে চিকিৎসার পর সুস্থ হয়ে ৩ সন্তান ও প্রসূতি বাড়ি ফিরে যান।