• শুক্রবার   ২০ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৬ ১৪২৯

  • || ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:

আমদানি-রপ্তানিতে কাস্টমস গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে: রাষ্ট্রপতি

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৬ জানুয়ারি ২০২২  

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য তথা আমদানি-রপ্তানির ক্ষেত্রে কাস্টমস অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। বাংলাদেশ কাস্টমস অত্যন্ত দৃঢ়তার সঙ্গে এসব কার্যক্রম পরিচালনা করছে। বুধবার (২৬ জানুয়ারি) ‘আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস-২০২২’ উপলক্ষে দেওয়া বাণীতে তিনি এ কথা বলেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রমকে সহজ, স্বচ্ছ ও গতিশীল করার জন্য বাংলাদেশ কাস্টমসের কার্যক্রমের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সব সরকারি-বেসরকারি সংস্থা ও ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের নিবিড় যোগাযোগ স্থাপন খুবই জরুরি। এক্ষেত্রে প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহারের কোনো বিকল্প নেই। এই প্রেক্ষাপটে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবসের এবারের প্রতিপাদ্য ‘Scaling up Customs Transformations by Embracing a Data Culture and Building a Data Ecosystem’ সময়োপযোগী হয়েছে বলে আমি মনে করি।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস ২০২২’ উপলক্ষে আমি বাংলাদেশ কাস্টমসের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী, সেবাগ্রহীতা ও শুল্ককর প্রদানকারী সব অংশীজনকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি।

মো. আবদুল হামিদ বলেন, নিরাপদ আন্তর্জাতিক বাণিজ্য নিশ্চিত ও বাণিজ্যবান্ধব পরিবেশ তৈরি করা শুল্ক বিভাগের অন্যতম দায়িত্ব। এজন্য কাস্টমস প্রশাসনের অবকাঠামোসহ সার্বিক প্রাতিষ্ঠানিক দক্ষতা বৃদ্ধি ও উন্নয়নের বিকল্প নেই। এসব বিবেচনায় বর্তমান সরকার কাস্টমস বিভাগের আধুনিকায়নের ওপর গুরুত্বারোপ করেছে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, কাস্টমস ব্যবস্থাপনার অটোমেশন, করদাতাদের দ্রুত সেবাদান, আমদানি-রপ্তানি সরলীকরণ, কন্টেইনার/কার্গো স্ক্যানিং, বাণিজ্য ও ট্যারিফ উদারীকরণসহ ন্যাশনাল সিঙ্গেল উইন্ডো (এনএসডব্লিউ), ডাটা অ্যানালাইসিস ও আধুনিক ঝুঁকি ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে চোরাচালান ও জাল-জালিয়াতি প্রতিরোধে বাংলাদেশ কাস্টমস বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। তথ্য-প্রযুক্তিভিত্তিক আধুনিক কাস্টমস ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি পুরোপুরি বাস্তবায়িত হলে একদিকে যেমন রাজস্ব আদায় বৃদ্ধি পাবে তেমনি আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যে অসাধু তৎপরতাও হ্রাস পাবে বলে আমি মনে করি।

তিনি বলেন, আমি আশা করি, বাংলাদেশ কাস্টমস দেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যের প্রসারকল্পে ডিজিটাল পদ্ধতিসহ আন্তর্জাতিক রীতিনীতি দ্রুত বাস্তবায়নপূর্বক স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে আরও তৎপর হবে। আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের দ্বাররক্ষী হিসেবে পরিবেশ নিশ্চিতকরণের মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিতে গতি সঞ্চার করতে সক্ষম হবে। আমি ‘আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস-২০২২’ উপলক্ষে গৃহীত সব কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করি।