• বুধবার   ০৬ জুলাই ২০২২ ||

  • আষাঢ় ২১ ১৪২৯

  • || ০৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

মাদারীপুর দর্পন

খালেদা জিয়া পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেছে এটি শতাব্দীর সেরা মিথ্যে কথা: নাছিম

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২১ জুন ২০২২  

মাদারীপুর প্রতিনিধি

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম বলেছেন, বিএনপি-জামাতিরা বলে বেগম খালেদা জিয়া নাকি পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেছেন। এটি শতাব্দীর সেরা মিথ্যে কথা। সোমবার দুপুরে মাদারীপুর জেলা শিল্পকলা একাডেমির মিলনায়তনে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ও জনসভা সফল করার লক্ষ্যে বিশেষ বর্ধিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এ সময় বাহাউদ্দিন নাছিম আরও বলেন, পদ্মা সেতু যেন না হয় তার সব ধরণের ষড়যন্ত্র করেছিল কুচক্রিমহল বিএনপি জামাতিরা। পদ্মা সেতু নিয়ে দেশে-বিদেশে নানা ধরণের মিথ্যেচার করেছে, ষড়যন্ত্র করেছে ড. ইউনূস ও খালেদা জিয়া। এ কারণে একপর্যায় বিশ্বব্যাংক তাদের সহযোগিতা প্রত্যাহার করে নেয়। তারা ভেবেছিল পদ্মা সেতুতে ষড়যন্ত্র হয়েছে, দুর্নীতি হয়েছে। 

পদ্মা সেতুতে দুর্নীতি হয়নি উল্লেখ করে বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, বাংলাদেশের আদালতে নয়, কানাডার আন্তজাতিক আদালতের পদ্মা সেতু নির্মাণে কোন দুর্নীতি হয় নাই, কোন ষড়যন্ত্রও হয় নাই উল্লেখ করে রায় ঘোষিত হয়েছে। সেদিন বিএনপি-জামাতি ও তথাকথিক অর্থনীতিবিদরা বাংলাদেশের নাগরিক হয়ে কতবড় মিথ্যেচার করেছিল। তারা দেশের সাধারণ মানুষের স্বার্থে মিশতে পারে না। তারা কখনোই বাংলাদেশি মানুষের বন্ধু হতে পারে না।

বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, বিএনপির দুর্নীতিগ্রস্ত সাঁজাপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছিল, জোড়া তালি দিয়ে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে। এ সেতু দিয়ে পাড় হওয়া যাবে না। এ কথা বলে সে জাতিকে লজ্জা ফেলে দিয়েছিল। কেননা তারা বোঝা উচিৎ, সেতুর স্টাকচার স্টিলের তৈরি যা বিদেশে মাটিতে তৈরি করে জোড়া দিয়েই বিশ্বের সব বড় বড় সেতু বানানো হয়ে থাকে।

মাদারীপুর-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, বাংলাদেশের মানুষ ঘুরে দাড়াক, দেশের মানুষের উন্নয়ন হোক তা বিএনপি জামাত চায় না। তারা চায় পাকিস্তানি সাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ। তারা চায় জঙ্গিবাদী সন্ত্রাসের উত্থান। তারা চায় তালেবান শাসন কায়েম করতে। তাদের শাসন সবাই বুঝে গেছে। তাই জনগণই তাদের প্রতিহত করতে শুরু করেছে।

পদ্মা সেতু উদ্বোধন প্রসঙ্গে বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের দিনটি হবে ঐতিহাসিক। জনসমুদ্রে পরিণত হবে প্রধানমন্ত্রী জনসভাস্থল। যা ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। আমরা প্রথমে ১০ লাখ মানুষের সমাগমের প্রত্যাশা করলেও জনসভাস্থলে আরও বেশি মানুষের সমাগম ঘটবে। জনসভাস্থলে দলীয় নেতাকর্মী ছাড়াও সব শ্রেণির মানুষকে যাওয়ার জন্য আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে যাতায়েতের সব ধরণের ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা দেন তিনি।

জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদ মোল্লার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সিরাজ ফরাজি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র খালিদ হোসেন, আইন বিষয়ক সম্পাদক ও ঘটমাঝি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাবুল আক্তার, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইউসুফ মোল্লা, কালকিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি তাহমিনা সিদ্দিকী, রাজৈর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ সেকান্দর আলী, শিবচর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল লতিফ মুনশি, ডাসার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সৈয়দ শাখাওয়াত হোসেন রাজৈর পৌরসভার মেয়র আওয়ামী লীগের নেতা নাজমা রশিদ প্রমুখ।

বর্ধিত সভা পরিচালনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবু কাজল কৃষ্ণ দে। অনুষ্ঠানের জাতীয় সংগীত ও জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি। এ ছাড়াও অতিথিদের ফুল দিয়ে বরণ করা হয়। এ সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মাদারীপুর জেলা আওয়ামী লীগের প্রয়াত নেতাদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।