• শুক্রবার   ২৭ নভেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৩ ১৪২৭

  • || ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

মাদারীপুর দর্পন
১৬৬

২১ আগস্ট হামলার কলঙ্কচিহ্ন বয়ে বেড়াচ্ছে বিএনপি

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ১৮ আগস্ট ২০২০  

ক্ষমতা দীর্ঘায়িত করতে রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে নিশ্চিহ্ন করার আদর্শ ধারণ করে বিএনপি। যার কারণে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সমাবেশে দলটির সভাপতি শেখ হাসিনাকে হত্যায় জঙ্গিদের মাধ্যমে গ্রেনেড হামলা চেষ্টা চালায় বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার।

অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের গায়ে জঙ্গিরাষ্ট্রের কালিমা লেপন করার চেষ্টা করা হয়। ২১ আগস্টের ঘটনায় রাষ্ট্র ও তারেক রহমানের পৃষ্ঠপোষকতা প্রমাণ করে, এটি পরিকল্পিত ঘটনা-এর দায় বিএনপিকে নিতে হবে। ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার ঘটনায় বিএনপির সম্পৃক্ততার বিষয়ে এমনটাই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

এই বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ বিভাগের একজন সাবেক অধ্যাপক বলেন, আওয়ামী লীগের ব্যাপারে ‘মুখে শেখ ফরিদ, বগলে ইট’ নীতি নিয়ে চলে তার একাধিক দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বিএনপি। ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে রাজনীতিতে আওয়ামী লীগকে স্পেস না দিয়ে উল্টো দলটিকে নিশ্চিহ্ন করতে বেগম জিয়া ও তারেক রহমান নানাভাবে যৌথ ষড়যন্ত্র করেছেন। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনা তার বড় প্রমাণ। ২১ আগস্টের বীভৎস হত্যাকাণ্ড বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে একটি কলঙ্কময় অধ্যায় হিসেবেই চিহ্নিত থাকবে।

তিনি আরো বলেন, ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার সময় ক্ষমতায় ছিল বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার। দেশে কোনো অপরাধ সংঘটিত হলে প্রাথমিকভাবে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা সরকারের দায়িত্ব। অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য যে, গ্রেনেড হামলায় জড়িতদের চিহ্নিত বা গ্রেপ্তার না করে বরং তাদের রক্ষার অপচেষ্টা করেছে বিএনপি সরকার। পুরো ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে সাজানো হয় জজ মিয়া নাটক। সাধারণ মানুষের চোখে ধুলা দেয়ার জন্য যে নানা অপচেষ্টা-অপপ্রয়াস বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার নিয়েছিল তাতে কোনো সন্দেহ নেই। পরবর্তীতে আটক মুফতি হান্নানের স্বীকারোক্তিতে এই হামলার মাস্টারমাইন্ড হিসেবে তারেক রহমানের জড়িত থাকার বিষয়টি জানতে পারে দেশবাসী। সুতরাং এই হামলার কলঙ্ক সারাজীবন বিএনপি-জামায়াত নেতৃত্বকে বহন করে বেড়াতে হবে।

রাজনীতি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর