• শুক্রবার   ০৩ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ১৮ ১৪২৭

  • || ১২ জ্বিলকদ ১৪৪১

মাদারীপুর দর্পন
২৫০

স্ট্রোকের এসব লক্ষণ অবহেলা করলেই মৃত্যুর ঝুঁকি

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৬ জানুয়ারি ২০২০  

স্ট্রোক করলে রক্ষা নেই! জানেন কি? স্ট্রোককে মৃত্যুর চতুর্থ কারণ হিসেবেও বিবেচনা করা হয়। একেবারেই হঠাৎ করে স্ট্রোক হলেও এর পূর্বে শারীরিক কিছু সমস্যা লক্ষণ হিসেবে প্রকাশ পায়। অনেকেই বিষয়গুলোকে অবহেলা করে। এতে স্ট্রোক হলে মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়ে।  

স্ট্রোক কী?

ব্রেইন বা মস্তিষ্কের যে কোনো অংশে যদি রক্ত চলাচলে বিঘ্ন ঘটে এবং নির্দিষ্ট অংশের কোষ নষ্ট হয়ে যায় তবে তাকে স্ট্রোক বলা হয়ে থাকে। দেহের রক্তের মাত্র দুই শতাংশ মস্তিষ্ক ব্যবহার করে থাকে। কিন্তু মস্তিষ্ক কোষসমূহ অত্যন্ত সংবেদনশীল। তাই অক্সিজেন বা শর্করা সরবরাহে সমস্যা হলে দ্রুত এই কোষগুলো নষ্ট হয়ে যায়। দুই ধরনের স্ট্রোক হতে পারে- ইসচেমিক স্ট্রোক (আঞ্চলিকভাবে রক্ত চলাচল বন্ধ হওয়া) এবং হেমোরেজিক স্ট্রোক (মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ)।

যেসব লক্ষণ বা উপসর্গ প্রকাশ পায়

চিকিৎসকদের মতে, স্ট্রোক খুবই অল্প সময়ের মধ্যে মানুষের প্রাণ কেড়ে নিতে পারে। এজন্য সবসময় নিজের শরীরকে বুঝতে হবে। স্ট্রোকের পূর্বে  শরীরের বিভিন্ন স্থানে এর লক্ষণ প্রকাশ পায়। এজন্য একে ‘ফাস্ট’ বলা হয়। এফ- ফেইস (মুখ), এ- আর্ম (বাহু), এস- স্পিস (কথা) এবং টি- টাইম (সময়)।

 

ফাস্ট থিওরি

 

১. স্ট্রোকের লক্ষণ প্রথম প্রকাশ পায় মুখে। খেয়াল করে দেখবেন, মুখের একপাশ ঝুলে যাবে। 

২. দ্বিতীয় লক্ষণটি হলো দুই হাত সমানভাবে উঁচু করা সম্ভব হবে না। একসঙ্গে দুই হাত উচুঁ করার পর লক্ষ্য করা যাবে এক হাত সামান্য নিচু থাকবে।

৩. স্ট্রোকের আরেকটি লক্ষণ হলো, কথা বলার সময় ব্যক্তি অস্পষ্টভাবে বলবে। কথা জড়িয়ে যাবে। যদি আপনার আশেপাশের কোনো ব্যক্তির মাঝে এমন লক্ষণ প্রকাশ পায় তবে তাকে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে বলুন।

৪. চতুর্থ হলো সময় জ্ঞান। যদি উপরের কয়েকটি লক্ষণ আপনার মাঝে প্রকাশ পায় তবে দ্রুত অ্যাম্বুলেন্স ডাকুন। এজন্য সবসময় ফোনে নিকটস্থ হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স বা জরুরি বিভাগের নম্বর রাখুন। আপনার প্রিয়জনের মধ্যে এসব লক্ষণ প্রকাশ পেলে অবশ্যই দ্রুত তাকে চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যান।

 

স্ট্রোকের কারণ

 

৫. স্টোকের পূর্বে ব্যক্তি চোখে ঝাপসা দেখতে শুরু করে। যিনি চোখে ভালো দেখতেন অথচ সাময়িক সময়ের জন্য ঝাপসা দেখছেন তিনিই স্ট্রোকের ঝুঁকিতে রয়েছেন। এজন্য অবহেলা করবেন না।

৬. এছাড়াও অনেকেই মাথা ঘোরা, অবসাদ, মাথা ব্যথা এবং নিজের ভারসাম্য রক্ষা করতেও হিমশিম খেয়ে যান। অতিরিক্ত দুর্বলতা বোধ করাও স্ট্রোকের পূর্বাভাস।

৭. এবার তবে জেনে নিন, দ্রুত অ্যাম্বুলেন্সকে বা হাসপাতালে ফোন করে কী বলবেন? প্রথমেই বলবেন ‘স্ট্রোক’ অতঃপর তারা ঠিকানা জিজ্ঞাসা করলে বলতে পারলে বলবেন অথবা দ্রুত এসএমএস পাঠাতে পারেন। এজন্য ফোনের ড্রাফটে সবসময় নিজের ঠিকানাটি সেভ করে রাখুন।

৮. অ্যাম্বুলেন্স আসার আগেই শরীরে কোনো টাইট পোশাক থাকলে তা খুলে ফেলুন। 

৯. আপনার শারীরিক কী কী সমস্যা রয়েছে তা একটি কাগজে ততক্ষণাৎ লিখে রাখুন। এতে আপনার জ্ঞান না থাকলেও চিকিৎসক সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। 

১০. স্ট্রোকের ঝুঁকি এড়াতে শারীরিক কসরত করুন। ধূমপান পরিহার করতে হবে। এছাড়াও উচ্চ রক্তচাপ, অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস ও বংশগতভাবে স্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার ইতিহাস থাকলে সজাগ থাকতে হবে।

স্বাস্থ্য বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর