• শনিবার   ২৮ নভেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৪ ১৪২৭

  • || ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২

মাদারীপুর দর্পন
৫১

সীমিত পরিসরে ১ নভেম্বর থেকে খুলছে জাতীয় জাদুঘর

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৮ অক্টোবর ২০২০  

সীমিত পরিসরে ১ নভেম্বর থেকে খুলছে জাতীয় জাদুঘর। মহামারির কারণে ২৬ মার্চ থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণার ২২০ দিন পর সরকারি এই প্রতিষ্ঠানটি খোলার ঘোষণা আসলো। 

জনসাধারণের জন্য বন্ধ থাকলেও এসময় জাদুঘরের দাফতরিক কাজ অব্যাহত ছিল। গ্যালারি বন্ধ থাকায় নিরাপত্তা কর্মীরা ছিলেন কর্মহীন। তারা বলছেন, জাদুঘর খুললে আবারো কর্মচঞ্চলতা ফিরবে। তবে জাদুঘরে প্রবেশের জন্য আগের মতো টিকিট কাটার ব্যবস্থা নেই। অনলাইনের টিকিট কাটার ব্যবস্থা করেছে কর্তৃপক্ষ।  

মঙ্গলবার থেকে জাদুঘরের প্রতিটি ফ্লোরে ধোয়া-মোছার কাজ শুরু হয়েছে। জাদুঘরের প্রধান ফটকে বসানো হয়েছে দু’টি সংক্রিয় জীবাণুনাশক টানেল। নিচ তলায় তৈরি করা হচ্ছে কাঠের নাম ফলক। এছাড়া প্রতিটি গ্যালারির নিরাপত্তা কর্মীদের তাদের গ্যালারি পরিষ্কারের কাজে ব্যস্ত দেখা গেছে।

১ নভেম্বর থেকে খুললেও জাদুঘরে প্রবেশ সীমাবদ্ধ থাকবে সীমিত সংখ্যক মানুষের জন্য। আগে যেখানে দিনে ৩-৪ হাজার মানুষ পরিদর্শন করতেন, সেখানে এখন পরিদর্শনের সুযোগ পাবেন মাত্র ৫০০-৮০০ জন। জাদুঘরে প্রবেশের জন্য গেটে টিকিটের ব্যবস্থা থাকবে না। টিকিট কাটতে হবে অনলাইনে। সেই টিকিটের ডাউনলোড কপি বা প্রিন্ট কপি বা টিকিট নম্বর গেটে দেখানো সাপেক্ষে জাদুঘরে প্রবেশ করতে পারবেন দর্শনার্থীরা এমনটাই জানিয়েছে জাদুঘর কর্তৃপক্ষ। আরো নিদের্শনা আছে, জাদুঘরে প্রবেশের জন্য প্রতিটি দর্শনার্থীকে অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে। অবশ্যই সামাজিক দূরত্ব ও অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে।

 

জাদুঘর পরিচ্ছন্নতার কাজ চলছে

জাদুঘর পরিচ্ছন্নতার কাজ চলছে

জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক খোন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান (এনডিসি) বলেন, ‘১ নভেম্বর থেকে জাতীয় জাদুঘর রি-ওপেনিং হবে। সীমিত সংখ্যক দর্শনার্থীর জন্য এটা ওপেন করবো। আমরা চাচ্ছি সকালের শিফটে ২০০ এবং বিকালে শিফটে ৩০০ জনের মতো যেন পরিদর্শন করতে পারেন। গেটে কোনো টিকিট বিক্রি করবো না আমরা। টিকিট বিক্রি হবে অনলাইনে। আমাদের ওয়েবসাইটে টিকেট বাটন তৈরি করা হয়েছে। সেখানে ক্লিক করে দর্শনার্থীরা টিকিট কাটতে পারবে। দর্শনার্থীরা স্বাস্থ্যবিধি মানে কিনা সে বিষয়ে মনিটরিং করার জন্য প্রতিটি ফ্লোরের জন্য একটি করে কমিটি গঠন করা হয়েছে।’

যারা অনলাইন ব্যবহার করতে পারে না, তারা কীভাবে টিকিট কাটবে সে বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আগেই বলেছি সীমিত পরিসরে একটি খোলা হচ্ছে। তাই সব সুযোগ-সুবিধা এখানে থাকছে না। অবস্থার উন্নতি হলে আমরা একটা মিটিং করে সিদ্ধান্ত নিবো আরো দর্শনার্থী একসঙ্গে প্রবেশ করতে দিতে পারবো কিনা এবং আগের টিকিটিং প্রক্রিয়ায় ফিরতে পারবো কিনা।’

অনলাইনে টিকিট কাটবেন যেভাবে

অনলাইনে টিকিট কাটার জন্য প্রথমেই যেতে হবে (http://nationalmuseumticket.gov.bd/) এই লিংকে। সেখান থেকে Buy Ticket ডায়লগ বক্সে যাবতীয় তথ্য দিয়ে রেজিষ্ট্রেশন সম্পন্ন করতে হবে। তারপর Purchase eTicket অপশনে ক্লিক করে জাদুঘরে ভ্রমণের তারিখ, টিকিট সংখ্যা লিখে Add বাটনে ক্লিক করতে হবে। একের অধিক টিকেট কিনতে Add More Ticket বাটনে ক্লিক করা লাগবে। Make Payment বাটনে ক্লিক করে পেমেন্ট গেটওয়ে দিয়ে পেমেন্ট সম্পন্ন করে Print Ticket অপশনে ক্লিক করে প্রিন্ট করে নিতে হবে। জাদুঘরে প্রবেশের সময় প্রথম গেট সংলগ্ন ই-টিকিট কাউন্টারে প্রিন্ট কপিটি প্রদর্শন ভেতরে প্রবেশ করতে হবে।
জাদুঘর পরিচ্ছন্নতার কাজ চলছে

জাদুঘরের প্রবেশ ফি

জাদুঘরে প্রবেশের জন্য বাংলাদেশি প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ২০ টাকা ও অপ্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ১০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া সার্কভুক্ত দেশের নাগরিকদের জন্য ৩০০ টাকা এবং অন্য দেশের নাগরিকদের জন্য ৫০০ টাকা প্রবেশ ফি নির্ধারণ করা হয়েছে।

জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর