• বৃহস্পতিবার   ১৩ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২৯ ১৪২৭

  • || ২৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

মাদারীপুর দর্পন
৮৯

রাজৈরে কিশোরীকে জখম করার ঘটনায় অভিযুক্ত গ্রেপ্তার

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৯ জুলাই ২০২০  

মাদারীপুর প্রতিনিধিঃ মাদারীপুরের রাজৈরে প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কিশোরীকে কুপিয়ে জখম করার ঘটনায় অভিযুক্ত সজীব শেখকে (২০) গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৮। বুধবার দুপুরে তাকে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে হাজির করা হলে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। গ্রেপ্তার সজীব রাজৈর উপজেলার হৃদয়নন্দী এলাকার আবুল হোসেন শেখের ছেলে।

র‌্যাব-৮ ও রাজৈর থানা পুলিশ জানায়, গাপন সংবাদের মাধ্যমে র‌্যাব জানতে পারে সজীব উপজেলার স্বরমঙ্গল এলাকায় তার খালার বাড়িতে অবস্থান করছে। পরে মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে সেখানে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে বুধবার সকালে র‌্যাব আসামিকে রাজৈর থানায় হস্তাস্তর করে। দুপুরে তাকে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে হাজির করা হলে আদালত সজীবকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মামলার এজাহার সূত্র জানায়, বখাটে সজীব দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে উত্ত্যক্ত করে আসছিল ১৬ বছর বয়সী এক কিশোরীকে। কিন্তু কিশোরী মেয়েটি তা প্রত্যাখ্যান করে। এতে খেপে গিয়ে তাকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেয় সজীব। গত সোমবার রাত নয়টার দিকে মেয়েটি তার পোশা খরগোশকে খাবার দিতে ঘর থেকে বাহিরে বের হয়। এ সময় ওত পেতে থাকা সজীব মেয়েটিকে একা পেয়ে চড়-থাপ্পর, কিল-ঘুষি দেয়। এক পর্যায় তিনি ধারালো অস্ত্র দিয়ে মেয়েটির মাথায় আঘাত করে। মেয়েটির চিৎকার শুনে পরিবার ও আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এলে পালিয়ে যায় সজীব। বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে আত্মগোপনে থাকে সজীব। মঙ্গলবার এ ঘটনায় সজীবকে আসামি করে রাজৈর থানায় একটি মামলা করেন আহত ওই কিশোরীর মা। এরপর থেকে পুলিশ ও র‌্যাব সজীবকে খুঁজতে থাকে।

র‌্যাব-৮ মাদারীপুর ক্যাম্পের সহকারি পরিচালক মো. রবিউল ইসলাম বলেন, ‘আসামি সজীব ওই কিশোরীকে গত তিন বছর যাবত বিভিন্ন ভাবে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। এ নিয়ে গ্রামের মাতব্বর পর্যায়ে দুই-তিন বার শালিস বসানো হলেও আসামি ভুক্তভোগী কিশোরীর পিছু ছাড়েনি বরং তাকে স্কুলে যাওয়া আসার পথে প্রায়ই ইভটিজিং করতো এবং প্রেমের প্রস্তাবসহ নানা ধরনের কুপ্রস্তাব দিত। এসব প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় সে কিশোরীর প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে আঘাত করে। ঘটনার পর থেকেই আমরা বিষয়টি নজরে রেখেছি। এমনকি গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা আসামিকে দ্রুত সময়ে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হই।’

এ সম্পর্কে রাজৈর থানার ওসি মো. শেখ সাদিক বলেন, ‘আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়েছে। আদালত তাকে কারাগারে পাঠায়। এ ঘটনাটি পুলিশের পক্ষ থেকে এখনো তদন্ত করা হচ্ছে।’

উপজেলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর