• শুক্রবার   ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ||

  • ফাল্গুন ১৬ ১৪২৬

  • || ০৪ রজব ১৪৪১

মাদারীপুর দর্পন
ব্রেকিং:
২৮

আপাতত ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি নয়

মাদারীপুর দর্পন

প্রকাশিত: ২৬ জানুয়ারি ২০২০  

পেঁয়াজ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন এবং দেশের কৃষকের উৎপাদিত পেঁয়াজের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে আপাতত ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির জন্য ইমপোর্ট পারমিট (আইপি) ইস্যু করবে না হিলির উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্র। একইসঙ্গে সারাদেশেই এই কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

হিলি স্থলবন্দর উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের কোয়ারেন্টাইন প্যাথোলজিস্ট মাহমুদুল হাসান মুসা বলেন, খাদ্যদ্রব্য পণ্যের আমদানির ক্ষেত্রে প্রত্যেক আমদানিকারককে ফি জমা দিয়ে আইপি নিতে হয়। তারপরে সেই আইপির বিপরীতে এলসি খুলে বিভিন্ন দেশ থেকে পণ্য আমদানি করতে পারেন আমদানিকারকরা। তবে উদ্ভিদ সংগনিরোধ অধিদফতর সিদ্ধান্ত নিয়েছে আপাতত ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির জন্য কোনও প্রকার ইমপোর্ট পারমিট ইস্যু করবে না। পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত এই অবস্থা বলবৎ থাকবে। সেইসঙ্গে পেঁয়াজ আমদানির জন্য যেসব আমদানিকারকের পুরনো আইপি নেওয়া ছিল, সেগুলোর মেয়াদও তিন মাস পার হওয়ায় বাতিল হয়ে গেছে। এছাড়া যেসব আমদানিকারক পেঁয়াজ আমদানির জন্য আইপি নিয়েছিলেন, তারা পেঁয়াজ আমদানি করেছিলেন কিনা সে বিষয়ে তদন্ত করা হবে।

তিনি আরও বলেন, ইতোমধ্যে কৃষিমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছেন দেশীয় পেঁয়াজ ক্ষেত থেকে ওঠার সময় ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি হওয়ার ফলে কৃষকরা দাম পান না। তাই দেশের কৃষকের উৎপাদিত পেঁয়াজের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত এবং পেঁয়াজ চাষে তারা যেন তারা উদ্বুদ্ধ হয় সেজন্য আপাতত ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা হবে না।

প্রসঙ্গত, ভারতের অভ্যন্তরীণ বাজারে পেঁয়াজের সংকট ও মূল্যবৃদ্ধির অজুহাত দেখিয়ে গত বছরের ২৯ সেপ্টেম্বর থেকে বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছে ভারত।

জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর